ক্যানবেরায় বাংলাদেশ হাই কমিশন প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধাকে সন্মান প্রদানে ব্যর্থ হয়েছে

ক্যানবেরায় বাংলাদেশ হাই কমিশন প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধাকে সন্মান প্রদানে ব্যর্থ হয়েছে

প্রবাসে মৃত মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় সন্মান প্রদানের বিধি থাকা সত্বেও বাংলাদেশ হাই কমিশন, ক্যানবেরা তার যথাযথ ব্যবহার করেনি।

বাংলাদেশের দুই বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্ষনদামোহন দাস ও ফারুক চোধুরী । মাত্র কমাসের ব্যবধানে দুজনেই মৃত্যুবরন করেছেন বাংলাদেশের বাইরে।

ক্ষনদামোহন দাস মারা গেছেন অষ্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরায় আর ফারুক চোধুরী মারা গেছেন কানাডার আলবার্টায়।

কানডায় বাংলাদেশ হাই কমিশনের রাষ্ট্রদূত তার কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে যথাযথ মর্যদায় মুক্তিযোদ্ধা জনাব ফারুক চোধুরীকে রাষ্ট্রীয় সন্মান প্রদান করেন (সন্মান প্রদান অনুষ্ঠানের লিংক সংযুক্ত)। অথচ অষ্ট্রেলিয়ায় মুক্তিযোদ্ধা ক্ষনদামোহন দাসকে যথাযথভাবে রাষ্ট্রীয় সন্মান প্রদান করার জন্য বাংলাদেশ হাই কমিশন এরুপ কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি।

প্রবাসে মৃত্যুবরনকারী মুক্তিযোদ্ধাদের রাষ্ট্রীয় সন্মান প্রদানের বিধি থাকা সত্ত্বেও ক্যানবেরায় বাংলাদেশ হাই কমিশন প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধাকে যথাযথভাবে সেই সন্মান প্রদানে ব্যর্থ হয়েছে।

https://www.facebook.com/chowdhury.faruquee/videos/705658570695260/


Place your ads here!

Related Articles

‘ত্রয়ী পাবলিকেশন’ থেকে প্রকাশিত প্রথম বইয়ের জন্যে লেখা আহবান

প্রবাসে পাড়ি জমানো প্রায় প্রতিটা মানুষ বা পরিবারের পিছনেই থাকে কিছু না কিছু গল্প। অবশ্যই সব যে দুঃখের গল্প তা

Canberra Eid-ul Fitr Friday 15th June 2018 / 1439

Asalamu-Alaikum  WRT WBT (Greetings of Peace to all mankind) Eid-ul Fitr 1439H / 2018AD in Canberra has been confirmed by

বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে স্বীকৃতি দানের আহবান

জাতিসংঘে’র কাছে  বাংলাদেশের বর্তমান প্রধান মন্ত্রি শেখ হাসিনা বাংলাকে জাতিসংঘের  দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে স্বীকৃতি দানের আহবান জানিয়েছেন। গত ২১ ফেব্রূয়ারী ২০১৬ কেনবেরাতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলখ্যে ‘একুশে রেডিও’র সাথে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে অস্ট্রেলিয়াতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাস্ট্রদুত হিজ   এক্সিলেন্সি কাজী ইমতিয়াজ  হোসাইন বলেন, বাংলাভাষাকে বাংলাদেশের  সর্বস্তরে চালু করার সরকারী পদক্ষেপের পাশাপাশি বাংলা ভাষার  আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ের জন্যে জাতিসংঘে’র কাছে  প্রধান মন্ত্রি শেখ হাসিনা বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে স্বীকৃতি দানের আহবান জানিয়েছেন। বিশ্বজুরে বাংলা ভাষার ব্যপক ব্যপৃতির প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে রাস্ট্রদুত  হোসাইন বলেন, বর্তমানে বিশ্বের প্রায় দুই তৃতীয়াংশ দেশে বাংলা ভাষা ভাষি লোকেদের বিচরন রয়েছে। এসব দেশে বাংলা’র প্রচলন ও চর্চার মধ্যে দিয়ে বাংলাকে আরো  ব্যপৃত করার সুজোগ রয়েছে। বাংলা ভাষার মধ্য দিয়ে বিশ্বে বাংলাদেশের পরিচয় আরো নিগুড় হবে বলে তিনি মনে করেন। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে’র স্বার্থকতা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বলেন ১৯৯৯ সালে  এউনেস্কো ২১ ফেব্রূয়ারী’কে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে ঘোষনা করার পর পৃথিবীর সর্বত্রই  সব ভাষাভাষির লোকেরা গর্বের সাথে  এই দিন টিকে উদযাপন করে আসছে।মাজিক কর্মকান্ড সহ জন জীবনের প্রতিটি কাজে ভাষার প্রয়োজনীয়তাটাকে  স্মরন করার একাটা সুজোগ করে দিয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন। বাংলাকে সর্বস্তরে চালু করার সরকারী উদ্দোগ থাকা স্বত্তেও ব্যাবসায়িক প্রতিষ্ঠানে বাংলাভাষার ব্যবহার তেমনভাবে  দেখা যায় না কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন- বাংলাদেশ একটা রপ্তানী মুখী দেশ। আর ব্যাবসায়িক 

No comments

Write a comment
No Comments Yet! You can be first to comment this post!

Write a Comment