জীবন ভ্রমন ৩ , ৪ :

জীবন ভ্রমন ৩ , ৪ :

জীবন ভ্রমন ৩ :  পাড়ার সকল ছেলে মোরা ভাই ভাই , এক সাথে খেলি আর পাঠশালায   যাই । শহরে এই দৃশ্য কম দেখা গেলেও গ্রামীন পরিবেশে দৃশ্য মান ছিল বেশ । টেকনোলজিকাল      সভ্যতার ক্রমবিকাশের  সাথে সাথে কবির কবিতার পংতি ম্লান হয়ে যাচ্ছে । টেকনোলজির  সাথে তাল  মিলিয়ে কবিতা ও  ছড়ার উন্নতি হচ্ছে । আর পাঠ্য সূচী থেকে বাদ পড়ে যাচ্ছে সরল প্রানের কবিতা গুলো  । নতুন  কবিদের বাচিযে রাখতে হবে ।

কাক যে উপকারী পাখি তা দেখেছি স্বাধীনতা উত্তর ঢাকায় । গৃহস্থালীর বর্জ্য পিক আপের তেমন কোনো সুব্যবস্থা পাকিস্তানিরা রেখে যায়  নি । কাক ডাকা ভোরে  কাকরা আনন্দ  করে পরিষ্কার  করত । আর মাঝে মাঝে তিন তালা  থেকে আটার রুটি ছুড়ে দিতাম । আর কাকরা ইলেকট্রিক ক্যাবল থেকে উড়ে গিয়ে ধরত । কাকদের রুটি খাওয়ার কম্পিটিশন দেখতাম আর ভাবতাম কাকেরা  ইলেকট্রিক সক হয়  না কেন । অথচ একদিন  আমি চামচ দিয়ে পাওয়ার পয়েন্ট স্পর্শ করতেই ধাক্কা ।

আমাদের  সরকারী কলোনি  কবির সেই  পাড়ার  মতই ছিল । কার বাবা কি চাকরি  করতেন  তা কখনো  বিবেচনা  না করে  এক সাথেই খেলতাম , স্কুলে  যেতাম , ভোরে পুলিশ  হাসপাতালের বাগানের ফুল কুড়াতাম , শহিদ মিনার বানাতাম , রাতে  অপোজিশনের ছেলেরা ভেঙে  দিয়ে  মজা পেত, আর  আমারা প্রতিশোধের জন্য এক বছরঅপেক্ষা করতাম ।

একবার  ২১ ফেব্রুয়ারীতে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে  স্কুলের কয়েক জন বন্ধু যাচ্ছিলাম । সপ্তম  কি ৮ম    শ্রেনীর  ছাত্র ছিলাম  l ভোরে পায়ে  হেটে কাকরাইল -রমনা পার্ক -রেস কোর্স  ময়্দান হয়ে । একজন বলল  ফুল নিতে হবে । রমনা পার্কের  সেই  গাধা  ফুল চিড়তে গিযে বেরসিক আনসার/ গাডের  নির্দেশ  মত  আমাদেরকে  কান ধরতে  হয়েছিল । অতীত অভিজ্ঞতা থেকে তারা ভোর থেকে গার্ড দিচ্ছিল  রমনা রেস্টুরেন্ট সংলগ্ন এক্সিট পয়েন্টে  । অপমানে সেইবার  আর শহীদ  মিনারে  যাওয়া  হয়নি ।(অসমাপ্ত )

 

জীবন ভ্রমন ৪ : রিক্সা , বেবি ট্যাক্সি, মুড়ির টিন  , প্রগতির তৈরী ৬ নং  বাস পিছনে ফেলে আজ ঢাকার বুকে চলছে মডার্ন যান বাহন ।  ১৯৭২ সাল । ঢাকা ছিল রিক্সার শহর । আর রিক্সায়  চড়ে  ঘুরে বেড়ানো  একটা  বিনোদন  ছিল ।

ভৈরব ব্রিজ এর একটি  spanner সম্ভবত মুক্তি যদ্দারা নস্ট করেছিল পাক হানাদের গতিবিদী সিমাবদ্দা করার জন্য । তাই তখন চাদপুর- সদর ঘাট লন্চ -স্টীমার সার্ভিস একটি প্রধান পাবলিক পরিবহন ছিল । ১৯৭২  সালের সেই প্রথম দিনের সদর ঘাট থেকে মতিঝিল রিক্সা ভ্রমন আজ ও অনেক কিছু মনে করিয়ে দেয় । ফকিরাপুল থেকে কাকরাইল  মোর (রমনা পার্ক )আট আনা রিক্সা ভাড়া । দুই বার চিন্তা করতাম রিক্সায় যাব, না হেটে গিয়ে পার্কে বাদাম খাব ।

সেইদিন  ফেস বুকে একজন একটি বাসের ছবি দিয়ে বলেছিল – চিনতে পারেন কিনা ।  সাথে  সাথে মনে পড়ে  গেল রামপুরা টূ সদরঘাট  ভায়া  গুলিস্তান -মালিবাগ । আমাদের সুপরিচিত মুড়ির টিন । গুলিস্তান টু সদর ঘাট ৩০ পয়সা ভাড়া ছিল । বহু বার উঠেছি এই বাসে । বাসের বডিতে হেল্পার হাত দিয়ে পথ ক্লিয়ার এর জন্য থাপ্পড়  দিলে খালি মুড়ির তিনের মোট মচমচ  আওয়াজ হত । তখন বাসে একজন টিকেট কালেক্টর থাকত । কালেক্টর সামনে  থেকে পিছনে যাওয়ার আগেই অনেকে নেমে পড়ত । এতে হেল্পার এর পাচ দশ পয়সা লাভ হত ।

স্বাধীনতার পর প্রগতির তৈরী নতুন  বাস  গুলো    (৬ নং বাস ) মতিঝিল পীর জঙ্গি মাজার হতে গুলশান -বনানী রুটে চলত । এদের দাপট ছিল ভিন্ন রকম । লাল  বাস ও মুড়ির টিনের পথ আটকে রেখে কাস্টমার তুলত । পরিবহন খাতে মোড়ল গিরী শুরু তখন থেকে । আর লাল বাসের অধপতন শুরু ।  আজ পর্যন্ত  লাভের  মুখ  দেখতে  পারে  নাই ।  এইত সেইদিন  কেনা লাল দোতলা  বাস  গুলো সারিবদ্দ  ভাবে অকেজো হয়ে দাড়িয়ে আছে । (অসমাপ্ত )


Place your ads here!

Related Articles

Udichi’r Shuborno Joyonti – Shampa Barua with Kamrul Ahsan Khan

Bangladesh Udichi Shilpigosthi is a leading progressive cultural organization in Bangladesh. The organisation’s goal is the struggle to build what

Shinzo Abe’s visit to Bangladesh: An Assessment

The visit of the Japanese Prime Minister to Bangladesh has been a fruitful one for his country. Japan got what

পহেলা বৈশাখ – পরবাসে

সাম্প্রতিক সময় অজয় দা র একটা লেখার পরিপ্রক্ষিতে আমার এই লেখার অবতারণা। বলতে কোন দ্বিধা নেই অজয় দা কিছু সহজ

No comments

Write a comment
No Comments Yet! You can be first to comment this post!

Write a Comment