মেলবোর্নে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৬৯-তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

মেলবোর্নে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৬৯-তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

অষ্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে বাংলাদেশ সরকারের সাফল্য তুলে ধরে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৬৯-তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

গত শনিবার (২৩ শে জুন, ২০১৮) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৬৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন শহরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের সাফল্য ও উন্নয়ন শীর্ষক এক রাউন্ড টেবিল আলোচনা সভার আয়োজন করে মেলবোর্ন আওয়ামী লীগ, অস্ট্রেলিয়া। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক দলসহ বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মেলবোর্ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. মাহবুব আলমের সভাপতিত্বে দলের সাধারন সম্পাদক, মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের রিসার্চ ফেলো ও মোনাস বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোল্লা মোঃ রাশিদুল হক সবাইকে স্বাগত জানিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে ৫২’র ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে, ৭১’র মুক্তিযুদ্ধ, ৭৫’র বঙ্গবন্ধুর পরিবারের হত্যাকান্ডসহ, ৯০’র স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে প্রান হারানো সকল শহীদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর দলের সাধারন সম্পাদক মোল্লা মোঃ রাশিদুল হক তার স্বাগত বক্তব্যে ১৯৪৯ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের মাটি আর মানুষের অধিকার আদায়ের জন্যে আওয়ামী লীগের অবদান স্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। তিনি বলেন, সেই ৫২’র ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে, ৬২’র শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬’র ৬ দফা, ৬৯’র গণ অভ্যুত্থান, ৭১’র মুক্তিযুদ্ধ, ৯০’র স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন সহ বাংলাদেশের সব গুরুত্বপূর্ণ অর্জনে নেতৃত্ব দেয় আওয়ামী লীগ । তিনি বিগত ১০ বছরে পদ্মা সেতু, মেট্রোরেলসহ বাংলাদেশের সমস্ত সেক্টরের অভূতপূর্ব উন্নয়ন কাজের জন্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের প্রশংসা করেন। তাছাড়া ২০১৮-১৯ সালের বাজেটে বাংলাদেশের উন্নয়নের ব্যাপক পরিকল্পনা সহ দেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানান । দেশে-বিদেশে সমস্ত বাংলাদেশীদের উনি দলমত নির্বিশেষে দেশের উন্নয়নে অংশগ্রহণ করার আহবান জানান।

এরপর তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অতি সাম্প্রতিক অষ্ট্রেলিয়া সফর কালে মেলবোর্ন আওয়ামীলীগ নীতৃবৃন্দের সাথে তাঁর স্বাক্ষাতের সংক্ষিপ্ত বিবরন দেন। তিনি বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাদের অভ্যন্তরীণ দলাদলির বাইরে এসে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশের উন্নয়নে কাজ করার আহবান জানান। উনি অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক কমিটিসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘নতুন কমিটি দিলে আমি দিব। আমার স্বাক্ষর ছাড়া অস্ট্রেলিয়াতে নতুন কোনো কমিটি আপনারা মেনে নেবেন না’। মেলবোর্ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মোল্লা মোঃ রাশিদুল হকের বক্তব্যের সম্পুরক বক্তব্যে তিনি বলেন ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ পর্যন্ত ২১ বছরে বহু মানুষকে প্রপাগান্ডা দিয়ে আওয়ামী বিরোধী তথ্য বিভ্রান্ত করা হয়। অনেকের বয়স ৫০-৫৫ হলেও তারা এখনও তথ্য বিভ্রান্ত। অনলাইনে বিভিন্ন মহলের আওয়ামী বিরোধী তৎপরতা রুখে দেয়ার জন্যে সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান জানান। এছাড়াও ইয়ং বাংলা ও সি আর আই সহ আওয়ামী লীগের আরও অনেক গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করার আহবান জানান।

এরপর ডঃ মাহবুব আলম সিডনীতে প্রধানমন্ত্রীর সাথের সাক্ষাতকালে তার বক্তব্যের সংক্ষিপ্ত রুপ উপস্থিত সবার কাছে তুলে ধরেন। তিনি বলেন , মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের বক্তব্যের উপর নোট নিয়ে গেছেন। আমরা তাঁকে কথা দিয়ে এসেছি আমরা প্রবাসীরা কিভাবে আওয়ামী সরকারকে আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে পূনরায় সরকার গঠনে যার যার অবস্থান থেকে দলের জন্য কাজ করতে পারি। আজকে তাই আপনাদেরকে আমন্ত্রন জানিয়েছি প্রবাসে আওয়ামী সরকারের সাফল্য তুলে ধরে ‘দেশের উন্নয়নে শেখ হাসিনার ভূমিকা ও আগামী নির্রবাচনে বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সাফল্য কি ভূমিক রাখতে পারে ’এর উপর আপনাদের বিশ্লেষণ জানার জন্য।

মেলবোর্ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডঃ মাহবুব আলম পরিচালিত আলোচনা পর্বে বিশিষ্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী সেলিম বলেন বাংলাদেশের সমস্ত বড় বড় আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অবদান অবিস্মরণীয়। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন থেকে শুরু করে দেশের উন্নয়নে নিরলস কাজের মাধ্যমে বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের দেশে রুপান্তরিত করেন, বঙ্গবন্ধুর খুনিসহ যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ব্যাবস্থা করেন, ও বাংলাদেশকে সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়া সবাইকে অস্ট্রেলিয়াতে বাংলাদেশীদের বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সাহায্য করা থেকে শুরু করে বাংলাদেশের আগামী নির্বাচনে দেশে গিয়ে আওয়ামী লীগের সরকারের পক্ষে কাজ করার আহবান জানান। তিনি ভবিষ্যতে অস্ট্রেলিয়ার সমস্ত আওয়ামী লীগের কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান জানান।

এছাড়া টেলিকনফেরেন্সের মাধ্যমে বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও মোনাস বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক জ্বালানী বিশেষজ্ঞ খন্দকার সূফি তার বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বাংলাদেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যার মাধ্যমে সেই উন্নয়ন রুখে দেয়ার চেস্টা করা হয়। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিস্ট নেতৃত্বে বাংলাদেশ আবার উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলছে। তিনি এই উন্নয়নের মহাযজ্ঞে সবাইকে অংশগ্রহণ করার আহবান জানান। নিউজিল্যান্ড বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাবেক সভাপতি ড. নজরুল ইসলাম দেশের মানুষের অধিকার আদায়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অবদান স্মরণ করেন ও আমাদের মেধা কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

মেলবোর্ন বঙ্গবন্ধু পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও আর এম আই টি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড.সানিয়াত ইসলাম বলেন কয়েক বছর আগে রানা প্লাজার দূর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি কুচক্রী মহলের মেলবোর্নের ব্যাবসায়ীদের বিভ্রান্ত করার ষড়যন্ত্র তিনি ব্যাক্তি গত উদ্যোগে আরও কিছু বাংলাদেশীদের নিয়ে রুখে দেন। তাছাড়া ২০২৫ সাল নাগাদ বাংলাদেশের গার্মেন্টস সেক্টরে আয় ৫০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করার লক্ষ্যে তিনি কাজ করেছেন বলে জানান। তিনি সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে দেশের জন্য কাজ করার আহবান জানান। মেলবোর্ন বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি জনাব মফিজুল ইসলাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পটভূমি ব্যাখ্যা করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উন্নয়ন মূলক কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

এছাড়া অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি জনাব হাসনাইন রুবেল, ও মোনাস বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসিয়াল বাংলাদেশ ছাত্র প্রতিনিধি জনাব তানভীর হোসেন হিমেল। অনুষ্ঠানে বক্তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের সাফল্য ও উন্নয়ন নিয়ে বক্তব্য রাখেন। তারা অস্ট্রেলিয়ার আওয়ামী রাজনীতিতে সবাইকে একতাবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান।

আলোচনা অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মেলবোর্ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জনাব আজহারুল ইসলাম (সোহাগ), মেলবোর্ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জনাব সহিদুল হক সরকার সহ আরও অনেকে।

অনুষ্ঠান শেষে সবাই এক নৈশভোজে অংশ নেন।


Place your ads here!

Related Articles

Muktir Opekhay Uni Campus

মূক্তির অপেক্ষায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসঅধ্যাপক ড. ফরিদ আহমেদ, দর্শন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীন হলে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ

মা, চোখ বন্ধ করিস না!

ভেবেছিলাম নুসরাতকে নিয়ে কিছু লিখবো না। লিখতে গেলে – আবার সেই অসহ্য ব্যাপার গুলি চোখের সামনে চলে আসবে। আমি নিতে

পূণ্যভূমি সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশি নারীর লাশও আসে

ফজলুল বারী: মুসলমানদের পূণ্যভূমি, আল্লাহর ঘরের দেশ সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশি নারীর লাশও আসে। এ নিয়ে বাংলাদেশের নানা মিডিয়ার খবর

No comments

Write a comment
No Comments Yet! You can be first to comment this post!

Write a Comment