Canberra Eid-ul-Adha Sunday 16th June 2024

by Muhith Masih (বাবু) | June 7, 2024 9:58 am

Assalmu Alaikum. EID day will be SUNDAY, 16th June 2024 Inhallah.
– Imams Council of ACT.

Note: Salat-ul-Eid at Canberra Mosque will be held at 8am SHARP, Inshallah.
CIC 2 Prayer Sessions, 7:30am and 9:00am repectively subject to confirmation.

[1]
Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/06/image-5.png

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2024/canberra-eid-ul-adha-sunday-16th-june-2024/


Shoeb Mortoza !!

by Dr Naila Aziz Meeta | April 26, 2024 4:41 pm

Shoeb Mortoza is a very simple, kind, honest and humble person who has the capabilities of mesmerising people with his behaviour, wonderful work, music and so many other beautiful creations. He is an extremely talented person who has extraordinary skills in music with a euphonious voice!

He has an emotion and connection to the song with great passion and talent throughout. In addition, he conveyed the emotion within the lyrics well. He has a good connection on stage between performers and the audience.

Event link at https://www.facebook.com/events/[1]

Regarding music, he is not only confined within himself but he also inspires & helps others to make a good bond with the music. His music recording skills are also awesome and his recording studio is magnificent!!

Shoeb Mortoza, based in Canada, has an intense passion for music. Although he has a career in software engineering, Shoeb takes his music seriously.  He pursued his computer science studies in Canada before moving to New Zealand for a few years, where he met and married Lisa Shoeb. During their time in Auckland, both Shoeb and Lisa were actively engaged in the community. They formed many valuable friendships and cherished their experiences in New Zealand. In 2005, Shoeb returned to Canada and has since been residing in Toronto.

Shoeb began his singing journey at a young age, and by the age of 11, he had developed a deep love for ghazal music. Over the years, he has been inspired by both contemporary and classical music maestros, shaping his unique vocal style. Guided by his mentor, Ali F. M Rezwan, Shoeb honed his skills in Indian classical music.

Aside from ghazals, Shoeb demonstrates his musical versatility through performances of Nazrul Shangeet, Adhunik Bangla, and Hindi Film songs. Beyond music, he is also passionate about videography, sound mixing, and composing, showcasing another side of his creativity.

Your Website Title

Your Website Title

Every year, Shoeb enchants audiences with solo ghazal concerts in the Greater Toronto Area (GTA). These performances have become a beloved tradition, with recent shows at renowned venues like the Aga Khan Museum Auditorium and the Chinese Cultural Centre earning him great acclaim and appreciation.

Though music holds a special place in his heart, Shoeb Mortoza’s professional life is rooted in software engineering. With over 15 years of experience in various GTA industries, he skillfully combines his technical knowledge with his artistic pursuits, achieving a harmonious balance in his diverse life.

Your Website Title

Shoeb's next solo ghazal concert :-

It’s scheduled for August 31, 2024, at the prestigious Hammerson Hall, Living Arts Centre, in Mississauga, Ontario, Canada. He will be joined by some of Toronto’s finest musicians.

Shoeb Mortoza’s ghazals can be enjoyed on YouTube and his Facebook page by searching for his name.

Good luck Shoeb Mortoza, our best wishes and prayers are always with you ♥️ 

Written by Dr Naila Aziz Meeta

Endnotes:
  1. https://www.facebook.com/events/: https://www.facebook.com/events/382175604608464?view=permalink&id=382450061247685&mibextid=oFDknk&rdid=Kaj1kM24Yt37328J&share_url=https%3A%2F%2Fwww.facebook.com%2Fshare%2FjHCZ5APVCjL4f684%2F%3Fmibextid%3DoFDknk
  2. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/04/40230d00-0035-4057-84b4-49751889fe60.jpg
  3. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/04/5caa2991-24d7-4bd8-91d9-f0d36ca9acb3.jpg
  4. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/04/5e1034b4-9a66-4d8b-8afc-a7895d5d3b2f.jpg
  5. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/04/9a94494d-f09b-4758-a369-b5bc01d76516.jpg
  6. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/04/edd3f839-bc3d-4d97-afe7-97e285b8a6a1_1.jpg
  7. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/04/edd3f839-bc3d-4d97-afe7-97e285b8a6a1.jpg
  8. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/04/468b8bbf-47af-457e-babd-c475c39aec9c-1.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2024/shoeb-mortoza/


Canberra Eid-ul-Fitr 1445 Wednesday 10th April 2024

by Muhith Masih (বাবু) | April 9, 2024 6:32 pm

Assalamu Alaikum – Eid day will be WEDNESDAY, 10th April 2024. Eid Mubarak from the Imams Council of ACT, IA, completing 29 days of Ramadan for Canberran Muslims this year.

Wasalam and Eid Mubarak!

Eid Prayer at the Canberra Mosque, 130 Empire Cct, Yarralumla ACT 2600 @8am Sharp

Eid Prayers (two Jama’at’s) at the Canberra Islamic Centre, 221 Clive Steele Ave, Monash ACT 2904 @8am and @9:30am.

Please check respective websites for details.

Assalamu Alaikum. Salat-ul-Eid at the Canberra Mosque will start at 8am SHARP, tomorrow morning, Inshallah. Canberra Mosque.

EID MUBAROK,
CIC will have 2 Eid Prayer Jamats tomorrow @8:00am & @9:30am. Takbeer will start 15 minutes before jamat. Please come with Wudu & Prayer mats. Feel free to bring sweets/finger foods to share. Park ur car wisely & follow volunteer’s instructions. WISH YOU SAFE EID_EC.
Reply ‘STOP’ to opt-out

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2024/canberra-eid-ul-fitr-1445-wednesday-10th-april-2024/


মা

by Dr Naila Aziz Meeta | March 21, 2024 1:27 am

মা:

চলতে পথে হঠাৎ করেই
থমকে গেল পা
মনে হোল পেছনে আমার
দাঁড়িয়ে আছেন মা।

জলদি ঘুরে দৌড়ে গেলাম
শত স্বপ্ন মনে আঁকা
চমকে গিয়ে দেখতে পেলাম
চারিদিক যে ফাঁকা।

মা তুমি কোথায় গেলে
বাবাকেও যে পাইনা
হঠাৎ যদি এসে না পাও
তাইতো কোথাও যাই না।

আসতে যদি না পারো তোমরা
আমিই আসছি তবে
অপেক্ষাতেই বসে আছি
দেখা হবে মোদের কবে !!

Meeta
Meeta Aziz

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/literature/poems/2024/ma/


Speech by Faiza Rahman in the SBDQ Ifter program

by Dr Naila Aziz Meeta | March 20, 2024 11:47 am

This girl (Faiza Rahman) surprised me by her precious and beautiful speech. She’s Faiza Rahman, 14 years old and she’s in grade 9 student. She’s the daughter of Dr Samiya Luna and Dr Md S Rahman. She has a younger sister named Farzeen Rahman. Faiza discussed a crash course history lesson on the origins of the Hijab.

I’m including her beautiful note with a video of her recent speech in the SBDQ Ifter program. A few pictures of her beautiful family are also included here. May Allah SWT bless her always with her beautiful family.

Speech by Faiza Rahman in the Society Of Bangladeshi Doctor’s Queensland, Ifter program.

“Asalamualaikum everyone,
Ramadan Mubarak.

I feel privileged to be able to present my short speech in front of such esteemed individuals. As we all know, the ninth month of the Islamic calendar is the sacred month of Ramadan, a time of devotion, fasting, and spiritual growth. Today, I would like to discuss the importance of covering specifically for my age group.

To begin with, I will briefly outline what the Quranic verses state about covering. Covering is compulsory for both men and women. In Surah Noor & Surah Ahzad, Allah first mentions the covering for men and then for women. In Surah Noor, verses 30-31, Allah first mentions the covering for men and then for women. Men are instructed to lower their gaze and maintain modesty by wearing clothing that is not tight. Similarly, women are advised to lower their gaze and not to display their adornments. Furthermore, in Surah Ahzad, ayah 59, Allah instructs Prophet Muhammad (peace be upon him) to ask his wives, daughters, and believing women to wear outer garments when they go out to be easily recognized as Muslim.

The concept behind wearing the hijab is to protect the modesty of individuals by covering themselves externally, which also leads them to be more mindful of maintaining their internal modesty. This practice is primarily motivated by the command of Allah, with any additional benefits seen as secondary. I recently began wearing the hijab on the 23rd of January 2024 – the first day of school.

Initially, I had reservations about the practicality and appearance of the hijab. However, after hearing the experiences of other girls at my Quran teacher’s place, who found comfort and protection in wearing the hijab, my perspective began to shift. A few weeks later, my mum put on the hijab for me, my baby sister, and our two beautiful white cats, which was so much fun. After I put it on, I looked in the mirror and I was so surprised. I had a sudden deep feeling and fell in love with the hijab. I kept telling myself that I would do it soon. After the long school holidays during December,2023, I finally put up my courage & all my nervous and negative energy behind me.I embraced this new chapter of my journey & proudly wore the hijjab to school at grade 9, at my 14 years of age,Alhumdulillah.

I am going to a private Christian school, and the uniform rules are very strict there. In my cohort, there is no other Muslim girl, I was unsure of how my school would react to seeing me. Alhumdulillah, no one made any negative comments, which made me more confident. Though Initially, everyone was curiously looking at me.

Now, let me provide some amazing examples to illustrate this concept. Surprisingly, there are many parallels in nature. Fruits, animals, and plants all have coverings. Think about even mobile, when we buy mobile set , we don’t use it without cage or covering for protection purposes. Even When we visit jewellery shops, precious jewels and metals such as diamonds and gold are kept in secure boxes for safety. This is similar to the concept of covering ourselves – we don’t want anyone to touch us or get us dirty.

The hijab is more than just a piece of cloth – it is a command from Allah and a protection for our dignity. Remember, that Allah sees your effort in wearing it and He will support you in your struggle. If you are sincere in your actions, Allah will make things easier for you.Prophet Muhammad (pbuh) said,”If you take one step towards Allah Swt,He will come to you running”

I wear the hijab for Allah, not for praise for sure, and I am really grateful for that. Jazakallah, please remember me and my family in your prayers. I wish you all the best, enjoy the rest of the evening and iftar. Advanced Eid Mubarak to everyone.”

Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0001.jpg
  2. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0002.jpg
  3. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0003.jpg
  4. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0004.jpg
  5. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0005.jpg
  6. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0006.jpg
  7. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0007.jpg
  8. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0008.jpg
  9. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/IMG-20240320-WA0009.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/islam/2024/speech-by-faiza-rahman-in-sbdq-ifter-program/


Iftar program, hosted by the Society Of Bangladeshi Doctor’s Queensland

by Dr Naila Aziz Meeta | March 19, 2024 2:09 pm

Iftar program, hosted by the Society Of Bangladeshi Doctor’s Queensland on 16th March ’24. Brisbane. QLD.

Our purpose of this program is to connect with friends and family’s , do prayers, doing religious activities by adults and children’s and to extend our knowledge about our culture and religion.

This year also our program included islamic activities by children of doctors, hamd Naat by our doctors, speech included valuable talk by president and Dua’s by our doctor and guest doctor’s. The prayers are for everyone.

This time in this program we had guest of honour, Dr. Mohammad Khateeb, who gave us a talk on the topic of Life, Health and Dignity. Dr. Khateeb is a consultant Geriatrician and a well-regarded spiritual speaker in Brisbane’s Islamic community.

Gifts distributed to the participants by our renowned guest Doctor, Dr A BM Ahsan Ullah, father of Dr Alin Sharmin.
By profession he’s a Prof of Physiology and Biochemistry and head of the Department for 20 yrs at different Medical colleges in Bangladesh.

Our program concluded by Azan given by our doctor followed by Ifter , dinner. The delicious food’s by our famous Mona Vai !

Thanks Dr Zaman Islam and team of SBDQ for arranging such a beautiful and memorable Ifter program. May Allah SWT fulfill everyone’s intentions and prayers 🙏❤️

Dr Naila Aziz Meeta
SBDQ

Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.23_a9b7f55d.jpg
  2. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.26_f3e5352c.jpg
  3. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.26_5349ac6a.jpg
  4. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.26_4799ec26.jpg
  5. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.26_4ef873c3.jpg
  6. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.25_e8bf7d78.jpg
  7. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.25_d32c1fe6.jpg
  8. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.25_d0fc4dc8.jpg
  9. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.25_c40998fb.jpg
  10. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.24_ee234798.jpg
  11. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-08.57.24_88e3654a.jpg
  12. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.50_a29df355.jpg
  13. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.51_4cfdea28.jpg
  14. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.51_080ca9a5.jpg
  15. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.51_de9170f9.jpg
  16. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.51_e283eef4.jpg
  17. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.51_fd2eed80.jpg
  18. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.52_1dc61c8e.jpg
  19. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.52_454f634e.jpg
  20. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.52_6008e2cd.jpg
  21. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.52_b8958292.jpg
  22. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.53_6dec0a74.jpg
  23. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.53_109726c4.jpg
  24. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.53_bc4936d1.jpg
  25. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.53_c39da89f.jpg
  26. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.54_1b969092.jpg
  27. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.54_d211f6f2.jpg
  28. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.54_eaec92d5.jpg
  29. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.55_15a6d79c.jpg
  30. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.55_74981cf0.jpg
  31. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.55_ab213001.jpg
  32. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.56_6e8b41f6.jpg
  33. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.56_8f842b60.jpg
  34. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.56_96c0cda3.jpg
  35. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.56_e9785b94.jpg
  36. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.57_9a241f5b.jpg
  37. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.57_52247e82.jpg
  38. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.57_cf0e007c.jpg
  39. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.57_ed4f7fd2.jpg
  40. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.58_6747c4d5.jpg
  41. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.58_c37b11d2.jpg
  42. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.58_ef4bacf2.jpg
  43. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.58_fd329e33.jpg
  44. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.59_4fbd6d84.jpg
  45. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.59_5bc03c8a.jpg
  46. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.13.59_87b88287.jpg
  47. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.00_24e01e15.jpg
  48. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.00_ce0eb921.jpg
  49. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.00_f0812f43.jpg
  50. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.01_4ac981a7.jpg
  51. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.01_31978396.jpg
  52. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.02_49e6adf2.jpg
  53. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.02_02682b6d.jpg
  54. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.03_5cdc60ab.jpg
  55. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.03_47dff2af.jpg
  56. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.03_746fd4ee.jpg
  57. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.03_a5f6c88f.jpg
  58. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-18-at-09.14.04_3819fe70.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2024/iftar-program-hosted-by-the-society-of-bangladeshi-doctors-queensland/


Canberra Ramadan 2024 (1445H) Starts Tuesday 12th March

by Muhith Masih (বাবু) | March 10, 2024 7:08 pm

Salamu Alaikum WRT, WBT (Peace be on you). The Imams Council of the ACT announces the start of Holy Ramadan 1445 for Tuesday 12th March, 2024. IA. Taraweeh prayers are expected from tomorrow (Monday) nite, IA. – Ramadan Mubarak!

Click here f[1]or complementary Ramadan 2024/1445 @ CBR Timetable[2]

[3]
Endnotes:
  1. Click here f: http://banglaweb.com/islam/ramadan24.pdf
  2. or complementary Ramadan 2024/1445 @ CBR Timetable: http://banglaweb.com/islam/ramadan24.pdf
  3. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/INTERACTIVE-Ramadan-2024-Fasting-hours-around-the-world-1709713740.webp

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2024/canberra-ramadan-2024-1445h-starts-tuesday-12th-march/


গজল সন্ধ্যা – প্রেম ও ভক্তির অপূর্ব মিলন

by Dr Naila Aziz Meeta | March 7, 2024 7:27 pm

গজল হচ্ছে হালকা মেজাজের লঘু শাস্ত্রীয় সঙ্গীত। এটাকে আবার হালকা-গম্ভীর রসের মিশ্রণে সিক্ত আধ্যাত্মিক গান ও বলা হয়ে থাকে। ‘গজল’ শব্দের আক্ষরিক অর্থ প্রেমিক-প্রেমিকার কথোপকথন। তাই গজল গানকে প্রণয়সঙ্গীতও বলা হয়। তবে গজল প্রেমিক-প্রেমিকার গান হলেও এ গান এমন একটি শৈলী যাতে প্রেম ও ভক্তির অপূর্ব মিলন ঘটে এবং শ্রোতার মনকে আন্দোলিত করে তোলে। পার্থিব প্রেমের পাশাপাশি গজল গানে পাওয়া যায় অপার্থিব প্রেম, যে প্রেমে স্রষ্টার প্রতি আত্মার আকূতি নিবেদিত‌ হতে দেখা যায়।

মনের প্রশান্তির জন্য আমরা বিভিন্ন ভাবে আমাদের পছন্দের বিষয়বস্তু ও মানুষজনকে সাথে করে আমাদের অবসরকে সঙ্গী করে সময় কাটাতে ভালোবাসি। যেমন :- কেউ বেড়াতে, কেউ গল্প করতে, কেও বা গল্পের বই পড়তে, কেউ পরিবার নিয়ে সময় কাটাতে, কেউ ধর্মকে আলিঙ্গন করে, কেউ ছবি এঁকে, কেউ ছবি তোলে, কেউ রান্না করে, কেউ পড়াশোনা করে, কেউ কাজকর্ম করে, কেউ গান গেয়ে, কেউ গান শুনে, কেউ বা সম্পূর্ণ একা থেকে ইত্যাদি !

আসলে সুখ- আনন্দ ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে আমাদের আশেপাশেই! শুধু একটু কষ্ট করে খুঁজে নিতে হয়। যদিও প্রবাস জীবনে অবসর পাওয়া খুবই কঠিন তবুও মনে প্রবল ইচ্ছে থাকলে সে সময়টিও বের করা সম্ভবপর হয়। পরিবার ও‌ বন্ধুবান্ধব নিয়ে সময় কাটানোর মুহূর্তগুলোই সবচাইতে বেশি আনন্দের বলে আমার মনে হয় আর সেই মুহূর্তগুলিতে আমরা যা’ই করি না কেন সময় গুলো খুব সুন্দর ভাবে কেটে যায়।
এই বিদেশে বসে আত্মীয় পরিজনের সান্নিধ্য পাওয়া খুবই কষ্টকর কিন্তু এর মাঝে যদি আত্মীয় সমতুল্য বন্ধু বান্ধব এর ভালোবাসা পাওয়া যায় তাহলে সেটি একটি আশীর্বাদের মতোই হয়ে ওঠে।

এরকমই এক ছুটির দিনে আমন্ত্রণ পেলাম খুব প্রিয় বন্ধু বন্দিতা ও মিঠুন এর। চমৎকার মনের অধিকারী এই যুগল তাদের পরিবার নিয়ে ব্রিজবেনে বসবাস করছেন অনেক দিন যাবত। ওরা দুজনেই পেশাগত কাজের পাশাপাশি সংগীতের প্রতি ভীষণ রকম অনুরাগী। ওদের ছোট ছোট দুটো মেয়ে মিষ্টি ও রাই। ওরাও স্কুলে পড়াশুনার পাশাপাশি গান বাজনাতে দারুন ভাবে পারদর্শী। ‌শুধু গান-বাজনা বললে ভুল হবে, সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডল বলতে যেটি বোঝায় ওদের কাছে গেলে সেটিই বোঝা যায় । ঘরে বাইরে চারিদিকে ওদের সংস্কৃতির ছোঁয়া। ‌

বন্দিতা মিঠুন নিজেরা Sargam Music Academy নামে একটি সাংস্কৃতিক organisation তৈরি করেছে যেখানে ওরা দেশি-বিদেশি বিভিন্ন শিশু ও বড়দের মিউজিক এর উপর শিক্ষা দিয়ে থাকে। পড়াশোনা, কাজকর্ম, ধর্ম সবকিছু সুন্দরভাবে করে দেশী ও বিদেশী সংস্কৃতিকে নিজেরা যেমন সুন্দরভাবে পালন করে চলছে তেমনি অন্যদেরকেও সেই শিক্ষা দিয়ে পারদর্শী করে তুলছে।

বন্দিতা ও তার পরিবার খুব ভালো করে জানে আমি সুন্দর সুন্দর গান শুনতে ভালবাসি। তাই একদিন আমাকে জানালো একজন খুব ভালো শিল্পীর কথা যিনি আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে সুদূর ইন্ডিয়া থেকে এসেছেন অস্ট্রেলিয়াতে এবং জানতে চাইলো আমরা ওনার গান শুনতে আগ্রহী কিনা। উনি মূলত: গজল পরিবেশন করেন। সত্যি কথা বলতে কি আমি ওনার গান আগে কখনো শুনিনি, তাই কিছুক্ষণের জন্য বুঝতে পারছিলাম না যাব কি যাব না কারণ এত ব্যস্ত সময়ের ভেতর সময় বের করা কঠিন। কিন্তু পরক্ষণে ভাবলাম এরা যখন বলছে নিশ্চয়ই স্পেশাল কেও হবে এবং খুব ভালো গান করেন।‌

ওস্তাদজীর নাম Ustad Ghulam Abbas Khan. তিনি একজন স্বনামধন্য আন্তর্জাতিক হিন্দুস্তানি ক্লাসিক্যাল ও গজল শিল্পী। তিনি classical and Ghazal উভয় সঙ্গীতেই সমানভাবে পারদর্শী। He belongs to the prestigious family of Hindustani Classical Vocalists, the Rampur Sahaswan Gharana that owes its allegiance to the tradition of Mia Tansen.

ওস্তাদজির আরও পরিচয় হচ্ছে তিনি Late Ustad Mushtaq Husain Khan Sahab এর নাতি, যিনি সর্বপ্রথম the Padma Bhushan Award (In Hindustani Classical Vocal Category) পেয়েছিলেন.

ওস্তাদজি তার শিক্ষা গ্রহণ করেছেন তার পিতা Late Ustad Ghulam Sadiq Khan Sahab (Padma Shri Awardee) এর কাছ থেকে যিনি একজন আন্তর্জাতিক ক্লাসিক্যাল শিল্পী এবং ওস্তাদ।

যথারীতি সেই সন্ধ্যা এলো, অনুষ্ঠান শুরু হলো…. বন্দিতার চমৎকার উপস্থাপনার ভেতর দিয়ে অনুষ্ঠানের প্রারম্ভ ।অনুষ্ঠানের শুরুটা তারা তাদের পুরোহিত 𝐒𝐰𝐚𝐦𝐢 𝐣𝐢 কে দিয়ে ওদের নিয়ম অনুযায়ী শুরু করলো। তারপর পরিচিতি পর্ব ! একটি কথা না বললেই নয়, যেটি খুবই মনে রাখার মত তা হলো, ওস্তাদজির নম্রতা, ভদ্রতা এবং বিনয়ী ব্যবহার এত চমৎকার যা কিনা মনে রাখবার মত। গান শুনবার পর এত বড় একজন শিল্পী যখন বুঝতে পারলাম তখন শুধু মনে হল কিভাবে ওনি এতটা নিরহংকার এবং down to earth!!

প্রোগ্রামটির নাম “Ek Shaam Ghazal Ke Naam”. প্রোগ্রামটি যারা প্রেজেন্ট করেছেন তাঁরা হলেন:-

Sargam Music Academy, Grand Starlight Events and Alchemy Events and Co on the 3rd of March 2024 at the Coorparoo Secondary College, Brisbane.

বাদ্যযন্ত্রে যারা ছিলেন:-
Wilson Allu bhai on guitar ,Sidharth Gurnal bhai on keyboard and Wahid bhai on tabla for playing live with Ustaad ji

একে একে বেশ কিছু গান উনি পরিবেশ করলেন। নির্ধারিত সময় শেষ হবার পরেও দর্শকদের অনুরোধে আরো অনেকক্ষণ বেশি গাইলেন। নিজের তৈরি করা গজল ছাড়াও ওস্তাদ জ্বি অন্যান্য শিল্পীদের যেমন Late Pankaj Uddas ji , Late Lata Mangeshkar Ji , ওনাদের গানও পরিবেশন করলেন। এরপর কিছুক্ষণ ফটো সেশন এরপর যথারীতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন দিয়ে পুরোটা প্রোগ্রাম শেষ হলো। শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও কিছুক্ষণ ঘোরের মতো ছিলাম ! মনে হচ্ছিলো আরো আরো গান শুনি…..

ধন্যবাদ বন্দিতা ও মিঠুন চমৎকার এই আয়োজনে আমাদেরকে মনে করবার জন্য। ‌ তোমাদের জন্য আমাদের অনেক অনেক শুভেচ্ছা ও প্রার্থনা।

গজল সন্ধ্যা – প্রেম ও ভক্তির অপূর্ব মিলন
নায়লা আজীজ মিতা

Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.13.50_e8bca564.jpg
  2. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.13.49_1a926891.jpg
  3. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.13.49_b72a09bd.jpg
  4. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.13.49_87892145.jpg
  5. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.13.49_aab26ef0.jpg
  6. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.13.48_f1ff7312.jpg
  7. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.13.48_22a395d2.jpg
  8. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.09.25_85a7fa1c.jpg
  9. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.09.26_62bec6cc.jpg
  10. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.09.25_61fe9870.jpg
  11. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.09.25_8143ea47.jpg
  12. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2024/03/WhatsApp-Image-2024-03-06-at-16.09.25_bb4f2b17-1.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/music-review/2024/ustad-ghulam-abbas-khan/


মুজিব : একটি জাতির রূপকার – আমার অনুধাবন

by Shamsuddin Shafi | November 14, 2023 9:34 am

গতকাল সুদূর অস্ট্রেলিয়াতে বসে আমরা উপভোগ করলাম ভারতের খ্যাতিমান পরিচালক শ্যাম বেনেগালের – মুজিব : একটি জাতির রূপকার।
সিনেমায় বঙ্গবন্ধুর চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রনায়ক আরিফিন শুভ। শেখ হাসিনা চরিত্রে অভিনয় করেছেন নুসরাত ফারিয়া এবং বঙ্গবন্ধুর স্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের চরিত্রে নুসরাত ইমরোজ তিশা।

অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা যায় , খায়রুল আলম সবুজ (লুৎফর রহমান), দিলারা জামান (সাহেরা খাতুন), সায়েম সামাদ (সৈয়দ নজরুল ইসলাম), শহীদুল আলম সাচ্চু (এ কে ফজলুল হক), প্রার্থনা দীঘি (ছোট রেনু), রাইসুল ইসলাম আসাদ (আবদুল হামিদ খান ভাসানী), গাজী রাকায়েত (আবদুল হামিদ), তৌকীর আহমেদ (সোহরাওয়ার্দী), সিয়াম আহমেদ (শওকত মিয়া), মিশা সওদাগর (জেনারেল আইয়ুব খান), এলিনা (বেগম খালেদা জিয়া) ও জায়েদ খান (টিক্কা খান)।

প্রথমেই বলতে হয় এটি একটি অসাধারণ সিনেমা হয়েছে। আরেফিন শুভ যে দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন তাতে আমি মুগ্ধ। তিনি অন্য সব চরিত্রকে ম্লান করে দিয়েছেন। বোঝাই যায় তিনি মুজিবকে ধারণ করবার জন্য পরিশ্রম করেছেন এবং এটি তার এখন পর্যন্ত শ্রেষ্ঠ কাজ। একজন পরিচালকের প্রতিভা কিভাবে একজন সামান্য অভিনেতাকে দিয়ে অসামান্য অভিনয় করিয়ে একটি চরিত্রকে ফুটিয়ে তোলা যায় এই সিনেমা তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

[1]

৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ শেষে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিয়ে মুভি শুরু হয়। তাজউদ্দীন আহমদসহ ন্যাশনাল লিডাররা গণমানুষদের সাথে নিয়ে এয়ারপোর্টেই তাদের প্রাণপ্রিয় মুজিব ভাইকে সংবর্ধনা দেন। বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দেয়া তাজউদ্দীন আহমদকে যতটা হাইলাইটেড করা দরকার ছিল চলচ্চিত্রে আমরা তেমনটা দেখি না। বস্তুত আল বদর, রাজাকারদের সাধারণ ক্ষমা, বাকশাল গঠন; ইত্যাকার নানাবিধ কারণে বঙ্গবন্ধুর ছায়াসঙ্গী তাজউদ্দীন আহমদের সাথে মুজিবের দূরত্ব তৈরি হয়। পঁচাত্তর ট্রাজেডির এটাও একটা কারণ। সেই বিষয়গুলো সিনেমাতে উহ্য রাখা হয়েছে। কার্যত তাজউদ্দীন আহমদ ও বঙ্গবন্ধুর যে রাজনৈতিক রসায়ন সেটি আমরা চলচ্চিত্রে দেখলাম না। মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস তাজউদ্দীনের নেতৃত্বে যেভাবে যুদ্ধ সংগঠিত হয় তাও অনুপস্তিত। পরিচালক হয়তো শুধু মুজিবকেই হাইলাইট করতে চেয়েছেন।

[2]

পঁচাত্তর ডেকে আনায় খন্দকারের মোশতাকের সাথে দেশি-বিদেশি চক্রান্তের রূপরেখা মুভিতে নেই। খন্দকার মুশতাক এবং তাহেরউদ্দিন ঠাকুর এর সঙ্গে নির্বাক জিয়ার প্রতিমূর্তি দেখানো কি খুব জরুরি ছিলো?

মুভিতে রিয়েলিস্টিক শট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধকালীন ভারতে যাওয়া বাঙালি শরণার্থী, মুক্তিযুদ্ধের অকৃত্রিম বন্ধু ইন্দিরা গান্ধীর সাক্ষাৎকার এবং মিত্রবাহিনীর কাছে হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের অরিজিনাল ফুটেজ ব্যবহার করা হয়েছে।

[3]

বঙ্গবন্ধুকে পাঠ করলে যে কেউ অনুধাবন করবেন, তিনি কেবল রাজনৈতিক কবিই নন, মানুষ ও ভূমির অনন্য কথাকারও ছিলেন বটে। তাঁর রচিত জীবনী, রোজনামচা, চিঠিপত্র ও বক্তৃতামালার প্রতিটি বাক্য, সংলাপ বা অনুচ্ছেদই যেন এক একটি মহাকাব্য। তার যে বিশাল ব্যক্তিত্ব তা যথার্ত ফুটে উঠেছে সিনেমায়।

রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে হয়তো শেখ মুজিবের অনেক ভুলত্রুটি ছিলো, কিন্তু তার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা এবং জ্ঞানের ফসল আজকের বাংলাদেশ তা আপনি স্বীকার করেন বা নাই করেন। আমার কেন যেন মনে হয় শেখ মুজিব এমন এক জাতিকে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন যার জন্য তারা প্রস্তুত ছিলেন না, হয়তো এখনো না। পৃথিবীর অনেক দেশ আজও বহু বছর যুদ্ধ করছে তাদের স্বাধীনতার জন্য। তাদের একজন মুজিব থাকলে হয়তো চিত্র ভিন্ন হত।

পরিশেষে Bongoz Films Australia এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ সুদূর অস্ট্রেলিয়াতে বসে এমন একটি অসাধারণ সিনেমা উপভোগ করবার সুযোগ করে দেয়ার জন্য।

Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/11/384547470_349378514425739_4251209682136659579_n.jpg
  2. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/11/384565709_353842210356500_7664205868183158754_n.jpg
  3. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/11/385544297_1489008095265047_8502252930304585351_n.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/film-book-art-others/2023/mujib-ekti-jatir-rupokar-amar-vabna/


মিউজিয়ামে মানবিক অবমাননার বালতি

by Dilruba Shahana | November 13, 2023 8:18 pm

সময় এখন ২০২৩ সালের শেষের দিকে। বড় দুঃসময়। যুদ্ধ চলছে। ঘোর যুদ্ধ। এমনি এক সময়ে আরেক যুদ্ধের কথা মনে করাচ্ছি। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সময়ে হিটলার পৃথিবীর কোল থেকে ইহুদীদের নিশ্চিহ্ন করার পণ করেছিল। যদিও শেষ পর্যন্ত সে সফল হয়নি । এই সময়ে অর্থাৎ বর্তমানে ইজরাইয়েলের নেতা বেনিয়ামিন নেতিনিয়াহু পৃথিবীর বুক থেকে, তার বয়ানে “wipeout Hamas from the face of the earth” বা ফিলিস্তিনী মুক্তিকামী দল হামাসদের মুছে ফেলবে বা নিশ্চিহ্ন করবে বলে ঘোষনা দিয়েছে। সমগ্র বিশ্ব রুদ্ধ শ্বাসে হামাস আয়ত্বাধীন গাজায় পলকে পলকে ইজরাইয়েলের হাতে নিরপরাধ, নিরস্ত্র মানুষের মৃত্যু দেখছে। হামাস অবশ্য ৭ অক্টোবর বহুল আলোচিত সুরক্ষিত ইজরাইয়েলের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ভেদ করে আচমকা দেশটিতে আক্রমণ চালিয়ে ঢুকে পড়ে। যা ইজরাইয়েলকে হতভম্ব ও বাকী বিশ্বেকে বিস্মিত করে।
কেন হামাস এমন অতর্কিত আক্রমণ করলো? পেছনের কাহিনী একটু স্মরণ করি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে হিটলারী নৃশংস তান্ডবে অনেক মানুষ মৃত্যুবরণ করে। গ্যাস চ্যাম্বার তৈরী করে তাতে মানুষকে বিশেষ করে ইহুদীদের ঢুকিয়ে কলের নল দিয়ে গ্যাস ছেড়ে নিমেষে শ’য়ে শ’য়ে মানুষ হত্যা করা হয়।
যুদ্ধ শেষে ইহুদীরা একটি নিজস্ব বাসভূমির আবেদন করে। হিটলারকে হারিয়ে জয়ী শক্তি যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স তাদের সাঙ্গপাঙ্গোরা প্যালেস্টিনীয়দের বাসভূমিতে জবরদস্তি করে ইহুদীদের থাকার জন্য রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে। তাই প্রথম থেকেই ইজরাইয়েল রাষ্ট্র ছিল এবং এখনও আছে প্যালেস্টিনীয় বা ফিলিস্তিনিদের নিজ ভূমি থেকে উৎখাত করে প্রতিষ্ঠিত এক রাষ্ট্র। তারপর থেকেই ফিলিস্তিনীদের রিফিউজী হিসাবে নানা জায়গায় ঠাই নিতে হয়। ফিলিস্তিনীরা শুধু মুসলমান নন। তাদের মাঝে মুসলিম, খ্রীস্টান সবাই আছে। কিন্তু জিয়নবাদী ইহুদীরা(উগ্র জাতীয়তাবাদীরা) ইজরায়েলকে চেয়েছে শুধুমাত্র ইহুদীদের জন্য। সেই থেকে অনবরত ফিলিস্তিনিরা অত্যাচার ও উৎখাতের শিকার। তাদের সন্তানরা তাবুতে জন্মায়, তাবুতে বড় হয় ইজরাইয়েলের কঠোর নজরদারী ও নিপীড়নের মাঝে। দশকের পর দশক অত্যাচারিত নিপীড়িত মানুষ দাঙ্গা হাংগামার মাঝেই কাটাচ্ছে জীবন।
৭ অক্টোবর তারা জ্বলে উঠে, জীবন বাজি রেখে আক্রমণ করে ইজরাইলকে যারা তাদের ঘরবাড়ি থেকে, বাসভূমি থেকে উচ্ছেদ করে নিজের জন্য উন্নত জীবন সাজিয়েছে। পশ্চিমা শক্তি বার বার বলেছে ইহুদী ও ফিলিস্তিনিদের দু’টো রাষ্ট হবে। সাত দশক কেটে গেছে ফিলিস্তিনিরা আজও তাদের দেশ পায়নি। উদ্বাস্তু জীবন থেকে মুক্তি পেয়ে একটি দেশ পাওয়ার আকাংখায় তারা জীবন বাজী রেখে লড়ে যাচ্ছে, লড়েই যাচ্ছে।
এর ফলশ্রুতিতে শুরু হল অসম দুই প্রতিপক্ষের মাঝে যুদ্ধ। অসম বলা হচ্ছে এই কারনে যে ইজরাইয়েল সর্বাধুনিক সমরাস্ত্রের অধিকারী আর গাজার বাসিন্দা প্যালেস্টীনিয়দের বিমান আক্রমণ ঠেকানোর মত সামান্য এ্যান্টি এয়ারক্রাফ্ট অস্ত্রও নেই।
তবে যুদ্ধ শুধু অস্ত্র দিয়ে প্রাণ সংহার নয়। মৃত্যুতো আছেই তারই পাশাপশি ভয়ংকর মর্মস্পর্শী, বেদনাদায়ক হল মানবের অবমাননা, অপমান।

[1]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে হিটলার বাহিনীর হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য কিশোরী এ্যান ফ্রান্ক তার পরিবার ও আরও কিছু পরিচিত ঘনিষ্ঠ জনদের সংগে নেদারল্যান্ডের আমস্ট্যার্ডাম শহরে ছোটখাটো এক কারখানার উপরতলায় প্রায় আড়াই বছর আত্মগোপনে ছিল। শেষ পর্যন্ত ওরা হিটলার বাহিনীর হাতে ধরা পরে। নাজী কন্সেন্ট্রেশন ক্যাম্পে এ্যান, তার মা ও বোনের মৃত্যু ঘটে। এ্যানের বাবা অটো ফ্রান্ক বেঁচে যান।
আমস্ট্যার্ডামে এ্যান ফ্রান্ক একটি কারখানার দোতলায় যে ছোট্ট পরিসরের কয়েক কামরার বাসস্থানে জীবনের আড়াই বছর কাটিয়েছিল আর প্রতিদিন ডায়েরী বা দিনলিপি লিখতো সে বাসস্থানটি এখন এ্যান ফ্রান্ক মিউজিয়াম।
যারা অল্প সময়ের জন্য ওই শহরে বেড়াতে যান ভীষণ স্বল্প পরিসরের মিউজিয়ামে যেতে হলে আগেই টিকিট কেটে রাখতে হবে তাদের। তা না হলে যাওয়া সম্ভব নয়। কারন প্রায় সব সময় এই মিউজিয়াম দেখার জন্য দর্শকরা ভীড় করে আসে।
কিছু সময় লাইনে দাড়িয়ে থেকে ঢুকার পর মাত্র পনেরো মিনিটের মাঝে মিউজিয়াম ভ্রমণ শেষ। এক এক গ্রুপের জন্য সময় বরাদ্দ পনেরো মিনিট।
দোতলায় উঠার সিড়ি ভীষণ সংকীর্ণ। দু’জন মানুষ পাশাপশি সিড়িতে পা রাখতে পারবে না। একটি ছোট অডিও ডিভাইস ফিতাতে আটকানো তা গলায় দুলিয়ে মিউজিয়ামের বিষয়ে ধারা বর্ণনা শুনতে শুনতে নিমিষে পনেরা মিনিট শেষ। এতো ছোট পরিসরে গাইডেড ট্যুর সম্ভব নয় ।
দোতলায় উঠার পর দরজা জানালা বন্ধ মৃদু আলো জ্বলা পরিসরে প্রবেশ। সব কিছু ১৯৪২-১৯৪৪ বা ১৯৪২-১৯৪৫এ যেমন ছিল তেমনিভাবে সংরক্ষন করা আছে। দেয়াল, চেয়ার-টেবিল, তৈজসপত্র তেমনি রংচটা ধূসরবর্ণ।
আমার নিঃশ্বাস আটকে আসছিল বদ্ধ ঘরে। কি করে এতো দীর্ঘ সময় ওরা এমন দম আটকানো বদ্ধ পরিসরে বেঁচে ছিল! ভাবলে মাথা ঘুরে যায়।
এ্যান ফ্রান্কের ডায়েরী অনেকেই পড়েছেন, তবে এই দমবন্ধ পরিবেশ না দেখলে যুদ্ধের সময়ে তাদের বেঁচে থাকার দারুন কষ্টের সংগ্রাম অনুভব সম্ভব নয়। আমাকে স্থম্ভিত করে দিল ঘরগুলোর কোন এক কোণে রাখা এলুমিনিয়ামের হাতল বা কড়াওয়ালা এক পুরানো বালতী ও অডিওতে তার বর্ণনা শুনে।
দিনের বেলা এ্যানরা টয়লেট ব্যবহার করতে পারতো না। কারণ দিনে নীচের কারখানায় চার-পাঁচ কি পাঁচ-ছয় জন লোক কাজ করতে আসতো। তারা যেন ঘুনাক্ষরেও না বুঝে যে উপরে কেউ লুকিয়ে আছে। তাই যতদূর সম্ভব প্রাকৃতিক ক্রিয়াকর্ম বা মল-মূত্র ত্যাগ বন্ধ রাখতে হতো। তা না হলে নীচে পাইপ দিয়ে ছড় ছড় করে পানি পড়ার শব্দে প্রাণ সংহয় হওয়ার মতো বিপদ ঘটতোই। যদি কারোর অবস্থা সাংঘাতিক বেগতিক হতো তখন বালতিই ছিল একমাত্র ভরসা।
যুদ্ধ মানুষকে চরম অবমাননায় ফেলে দেয়। মানুষ তার সম্ভ্রম বজায় রাখা ও শালীনতা রক্ষার জন্য অন্য প্রাণীর চেয়ে সতন্ত্র । মানুষ পশুপাখীর মতো সবার সামনে যত্রতত্র মলমূত্র ত্যাগ করে না এবং রতিক্রিয়াও জনসমক্ষে মানুষের কর্ম নয়, কুকুর যা সহজেই করে যায়। অথচ যুদ্ধ মানুষের শালীন, সুসভ্য আচরণকে বিসর্জন দিতে বাধ্য করে।
হিটলারের হাত থেকে লুকাতে গিয়ে এ্যানাদের অবমাননায় পূর্ণ ছিল সে বালতি।
মিউজিয়ামের ভিতরে ছবি তুলা নিষেধ তাই বালতির ছবি দেওয়া গেল না।
কিভাবে কিশোরী এ্যানা পানি খরচ না করে তার ঋতুকালীন সময় কাটাতো? ভাবতে ভয়ে, অপমানে গা রি রি করে উঠলো। যুদ্ধ মানুষকে তার সব সুসভ্য, শালীন আচরণ বিসর্জন দিতে বাধ্য করে অনায়াসে।
আজ গাজাতে পানি, খাদ্য, ওষুধশূণ্য অবস্থায় মানুষ কি করছে? মরছে আর ওখানে রজঃস্লা কিশোরী রক্তাক্ত বসনে মানুষের সভ্যতাকে বিদ্রুপ করছে।
যুদ্ধ জয়-পরাজয়ের বেশী যুযুধান দু’পক্ষকেই দেয় অমানবিক অবমাননা।

বিবেকবান ইহুদী বান্ধবী ইয়ায়েল হাজার মাইল দূরে থেকেও সমগ্র বিশ্বে নেতিনিয়াহুর কার্যকলাপের consecuence কি হবে ভেবে ভয় ও ঘৃণায় কাঁপছে। এর মাঝেই ওর আশংকা যে ভুল নয় তা ১/১১/২০২৩ নিউইয়র্ক টাইমসএ প্রকাশিত খবরটিই প্রমান
To Nitzan Mintz, one of the artists behind the fliers, watching them go viral in the first place was a shock. Seeing people rip down the posters has revealed what she said was clear antisemitism. “By accident this campaign did more than bring an awareness of the kidnapped people,” she said. “It brought awareness of how hated we are as a community.”
নিতজান মিন্টজ নামে আমেরিকা একজন হামাসের হাতে আটক ইজরাইয়েলীদের ছবি একে পোস্টার তৈরী করেন। সে পোস্টার আমেরিকার না না জায়গায় সেটে দেওয়া হয়েছিল। এখন সে পোস্টার যে যেখানে পারছে টেনে নামাচ্ছে, ছিড়ে ময়লার বিনে ফেলছে। আটকদের প্রতি সহানভূতির বদলে পোস্টার ধূলিস্মাত করা দেখে শিল্পী বলছেন, “এই কাজ একটি বিষয়ে সচেতন করছে যে সম্প্রদায় হিসেবে আমরা কত ঘৃনিত।

তার অনুভব ও বোধ এইযে নিরস্ত্র অসহা্য় মানুষের প্রতি এমন নিষ্ঠুরতা ও অপমান দেখে শুধু ফিলিস্তিনী নন বাকী বিশ্বে সচেতন মানুষ মাত্রই সবাই রাগে দুঃখে, অপমানে এক একটি ফুটোণ্মুখ আগ্নেয়গিরি। এটাকে বলা যাবে The warlords are pushing people to become terrorist to…
কখন কোথায় কোন আগ্নেয়গিরি বিস্ফোরিত হবে তা কেউ জানে না।
আজ ২ নভেম্বর অষ্ট্রেলীয় টিভির নিউজ ২৪ চ্যানেলে এদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রী পেনি ওয়াং অত্যন্ত সতর্ক ভাবে রুলস্ অব ওয়ার ও যুদ্ধের বিধান ইন্টারন্যাশনাল ল’, ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যানিটারিয়ান ল’ বা আইন মানার বিষয়টি উল্লেখ করলেন।
আরও যা বললেন তা হল গাজা ও ওয়েস্ট ব্যাংকে নিরস্ত্র জণগন বা অসামরিক প্যালেস্টীনিয়দের উপর যে আক্রমণ চলছে তা ইজরাইয়েলের নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলবে।
আসলে গাজায় হামাসকে নিশ্চিহ্ন করতে যে জঘন্য অপরাধ চালানো হচ্ছে তা প্রত্যক্ষ করে পৃথিবীর নানা প্রান্তে ইহুদী জাতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ জন্ম নিচ্ছে।
যদিও সব ইহুদী এই জঘন্য কর্মের সংগঠক নন, সমর্থকও নন।
নেতিনিয়াহুর কাজকর্মের কারনে বা পরিনামে পৃথিবী ইহুদীদের জন্য যেমন অনিরাপদ, ভয়ংকর হয়ে উঠবে, অগুণতি নিরপরাধ ফিলিস্তিনীদের মৃত্যু বেচেঁ থাকা অবশিষ্ট ফিলিস্তিনীদের বদলা নেওয়ার ইচ্ছার বারুদ বোমায় পরিণত করবে।

দিলরুবা শাহানা

Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/11/dilruba.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2023/museum-a-manobik-obomanonar-balti/


“বাদল দিনে” মিউজিক এলবাম এর রিভিউ

by Dr Naila Aziz Meeta | October 27, 2023 10:44 am

চরম এক ব্যস্ততার মাঝে যখন এই অ্যালবামটি পেলাম তখন ভাবছিলাম গানগুলো পরে শুনবো কিন্তু এর প্রচ্ছদ এবং নামকরণ আমাকে বারবার গানগুলো শোনার জন্য আহবান করতে লাগলো। পাঁচটি গানের সমন্বয়ে তৈরি এই অ্যালবাম “বাদল দিনে” শুনতে বসে প্রথমে ভাবলাম একটি দুটি গান শুনে পরে আবার বাকিগুলো শুনবো। ‌ কিন্তু প্রতিটি গানের কথা ও সুর এতটাই চমৎকার যে সবগুলো গান একবারে না শুনে ওঠতে পারলাম না এবং প্রতিটি গান বারবার করে শুনলাম। বিশেষ করে শিল্পী পন্ডিত তুষার দত্তের কন্ঠ এতটাই আবেগময় ও দরদ ভরা যা কিনা হৃদয় ছুঁয়ে যায়।

প্রতিটি গান এর ভেতর ক্লাসিক্যাল সুরের যে আমেজ রয়েছে সেটিই এই অ্যালবামের ব্যতিক্রমতা বহন করছে। ‌ গানের কথা ও সুরের সাথে শিল্পী তার কন্ঠের গভীরতা দিয়ে গানগুলোকে যেভাবে উপস্থাপন করে তুলেছেন তা সত্যিই অতুলনীয়। পাশাপাশি সবগুলো গানের সাথেই অসাধারণ বাদ্যযন্ত্র, অসাধারণ রেকর্ডিং এবং ভিডিও সংযোজন পুরো অ্যালবামকে অনেক প্রাণবন্ত করে তুলেছে।

সবকটি গানের কথা গুলো খুবই হৃদয় ছোঁয়া, গানের সুরগুলো মনের ভেতর দাগ কেটে যায় আর শিল্পীর কন্ঠ এতটাই ভরাট ও ছন্দমুখর যে, যা কিনা বারবার গানগুলো শুনবার জন্য হৃদয়ের ভেতর তাগিদ দিতে থাকে। গানগুলোর ভেতর ভালোবাসার যে গভীরতা প্রকাশিত হয়েছে সেটি মনে রাখবার মতো। সব গান শুনবার পর কখন যে শেষ গানটি হলো বুঝতেই পারলাম না। মনে হচ্ছিল এরপর হয়তো আরো কিছু গান শুনতে পাবো।

গানগুলো যখন শুনছিলাম ওই মুহূর্তে পরিবেশটি ছিল রৌদ্রজ্জ্বল ঝলমলে দিন। যদিও ঐ সময়ে গানগুলো শুনতে খুবই ভালো লাগছিল কিন্তু তবুও শুনতে শুনতে একথাও মনে হচ্ছিল যে, যদি একটু বৃষ্টি হতো কিংবা বাদলা দিন থাকতো তাহলে না জানি আরো কত সুন্দর এক পরিবেশ তৈরি হতো। কারণ গানগুলো শোনার সময় মনের ভেতর ওইরকম একটি ইচ্ছাই জেগে ওঠে এবং ওরকম একটি বাদল দিনের ও পরিবেশের কথাই মনে পড়ে যায়। অপেক্ষায় আছি কখন সেই বাদল দিনের ঘন ঘোর বর্ষা এসে আমার এই মনের ইচ্ছে কে পূরণ করবে এবং গানগুলোকে আবার আমি ওই পরিবেশে মন ভরে শুনতে পাব।

গানগুলি এতটাই প্রেমভিত্তিক মনে হয়েছে আমার কাছে যে এগুলো বুঝি সবাইকে তার নিজ নিজ জীবনের ভালবাসার বিভিন্ন মুহূর্তগুলোর কথা স্মরণ করিয়ে দেয়‌ এবং নিয়ে যায় স্মৃতির অতল গহ্বরে। ‌

আমার মনে হয় গানগুলো যেকোনো বয়সের মানুষের কাছেই অত্যন্ত শ্রুতি মধুর হবে এবং প্রত্যেকেরই জীবনের কোন না কোন মুহূর্তের সময় গুলিকে তাদের কাছে ধরা দিয়ে, তাদের জীবনের সেই কথাগুলো বলবে এবং তাদের কাছে গানগুলো ভীষণভাবে জনপ্রিয় হয়ে উঠবে।

অডিও অ্যালবাম – বাদল-দিনে (Badol Diney)
মূল মিউজিক ভিডিওগুলো পৃথকভাবে প্রকাশ করেছে জলসা স্টুডিও।

কণ্ঠ শিল্পীঃ পন্ডিত তুষার দত্ত
সুরকারঃ রবিন গুদা

সেতার: রাহুল চ্যাটার্জি
সারেঙ্গী: দেবাশিস হালদার
কীবোর্ড: শুভেন্দু দাস
তবলা: পিনাকী চক্রবর্তী
হারমোনিয়াম: অভিজিৎ সেনগুপ্ত
কুসুম স্টুডিওতে রেকর্ড করা হয়েছে

গানের তালিকা:
১. আজ এই শ্রাবন হাওয়ায় – গীতিকারঃ তুষার রায়
২. বাদল দিনে বাদল ধারা – গীতিকারঃ সাহাদাত মানিক
৩. কাজরি বাজিছে বনে – গীতিকারঃ সুশান্ত সরকার
৪. কেনো এলে না – গীতিকারঃ সাহাদাত মানিক
৫. এমন ঝরো ঝরো বরষায় – গীতিকারঃ সুশান্ত সরকার

রিভিউ:- ডাক্তার নায়লা আজিজ মিতা

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/music-review/2023/badol-diney-music-album-review/


রিভিউ:- মিউজিক ভিডিও “স্বপ্ন মনে জাগে” 

by Dr Naila Aziz Meeta | October 25, 2023 3:20 pm

এক অসাধারণ সম্মোহনী কন্ঠ যার , যে কিনা কথা বলতে শুরু করলে তার প্রতি আকৃষ্ট না হয়ে পারা যায় না এবং তার অনুপস্থিতিতেও ঐ কণ্ঠ আমাদের কানে প্রতিধ্বনিত হতে থাকে। এমন অপূর্ব কন্ঠ যখন সুরে সুরে কথা বলতে শুরু করে তখন তা মনের ভেতরে এমন ভাবে আন্দোলিত হয় যা কিনা আমাদের হৃদয় মনকে আনন্দে উজ্জীবিত করে তোলে এবং এর প্রভাব বিস্তৃত হয় অনেক অনেক দূর পর্যন্ত যেটি আমাদের অন্তরের অন্তস্থলে স্থান করে নেয়।

এই অসাধারণ কন্ঠের অধিকারী হচ্ছেন ডাক্তার নীলা, আমাদের ব্রিজবেনের “গানের পাখি”। নীলাকে চেনেন না এমন ব্যক্তি খুব কমই আছে। ওর মিষ্টি স্বভাব, ব্যবহার ও আচার-আচরণ এর মাঝে যে চঞ্চলতা, হাসিখুশি ও সরলতা ফুটে ওঠে সেটি মনে দাগ করবার জন্যে যথেষ্ট।

অসম্ভব সুন্দর মনের ও ব্যক্তিত্বের অধিকারী ডা: নীলা অবসর সময় অতিবাহিত করেন তার পরিবার ও সংসারের কাজকর্ম, জনসেবা এবং সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড দিয়ে।

নাচে – গানে পারদর্শী নীলার গানের প্রতি দারুণ রকম মোহ ও আগ্রহ ছোটবেলা থেকেই। সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলের মাঝ দিয়ে তার বেড়ে ওঠা। পুরো নাম নাজনীন নিজাম নীলা।‌ তার মা একজন রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী। মা এর কাছে ৪ বছর বয়সে গান শেখার হাতেখড়ি। বাবার সরকারি চাকুরির সুবাদে বিভিন্ন জেলাতে তার শৈশব কাটে।

প্রথম সংগীত শিক্ষক ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ওস্তাদ গজেন্দ্র লাল রায়। এরপর ওস্তাদ শামসুল হুদা, ওস্তাদ বশির আহমেদ এবং কোলকাতার পন্ডিত অজয় চক্রবর্তীর মত গুনী ওস্তাদদের কাছে উচ্চাঙ্গ সংগীত, নজরুল সংগীত এবং আধুনিক গানের তালিম নেয়ার তার সৌভাগ্য হয়েছে।

এছাড়া নজরুল একাডেমী থেকে ৫ বছরের প্রশিক্ষণ লাভ করেন‌ তিনি – যেখানে ওস্তাদ সুধীন দাশ, ওস্তাদ আখতার সাদমানী, ওস্তাদ জাকির হোসেন, ওস্তাদ আবদুল লতিফ, ওস্তাদ ফুল মোহাম্মদের মত গুনী ওস্তাদদের সংস্পর্শে আসার সৌভাগ্য তার হয়েছে।

ছোটবেলা থেকেই অসংখ্য গানের প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করে পুরস্কার লাভ করেন‌ নীলা। তিনি ১৯৯৩ সাল থেকে বাংলাদেশ বেতারের নজরুল সংগীতের তালিকাভুক্ত শিল্পী।

নীলা পেশায় একজন ডাক্তার। বর্তমানে General Practitioner হিসেবে Brisbane, Australiaতে কর্মরত রয়েছেন। তিনি Society of Bangladeshi Doctors in Queensland ২০২২-২০২৩ এর ভারপ্রাপ্ত President. Australiaতে উনি Radio 4EB এবং multicultural associations এর সাথে বিভিন্ন ভাবে যুক্ত ।

ডাঃ নীলার প্রথম মৌলিক গানের এ্যালবাম “স্বপ্নহারা” ২০১১ সালে প্রকাশিত হয় যেই এ্যালবামের “মনে মনে” গানটি দেশে ও বিদেশে বিপুলভাবে জনপ্রিয় এবং প্রশংসিত।

পেশাগত ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড এই সব কিছুর পাশাপাশি পারিবারিক জীবনে তিনি একজন ব্যস্ততম মা ও স্ত্রী। একমাত্র সন্তান, ছেলে নেহান ও স্বামী ডাক্তার খালেদকে নিয়ে তার সুন্দর ও সুখী পরিবার। নীলার সমস্ত রকম কাজে স্বামীর সহযোগিতা ও সাহায্য অপরিসীম ও অতুলনীয়। নীলার স্বামী ডাক্তার খালেদ। তিনি Cardiologist হিসেবে ব্রিসবেন, অস্ট্রেলিয়াতে কাজ করছেন।

এবারের পূজোয় ডাক্তার নীলা ভারতের  প্রখ্যাত গায়ক শান (শান্তনু মুখোপাধ্যায়) এর সাথে একটি music video প্রকাশিত করেছেন, যা ইতিমধ্যে অনেক সাড়া  জাগিয়েছে। শান এর সাথে এই গানটি প্রথম রেকর্ড করা হয়েছিল ২০১২ সালে। বিভিন্ন কর্মব্যস্ততার কারণে রেকর্ডিং এর কাজ সম্পন্ন করতে দেরি হয়েছে। 

চমৎকার এই music videoতে কন্ঠ দিয়েছেন ডাক্তার নীলা (Neela) ও শান (Shaan) এবং এই ভিডিওটির :-

সুরকার -রাজা বশির
গীতিকার-কবির বকুল
অভিনেতা-রিশাভ বাসু
অভিনেএী-উশাসি রে
রেকরডিং হয়েছে —সারগাম studio-Dhakaতে
Mixing হয়েছে – গনেশ সুরভে-মুম্বাই 
Shooting হয়েছে – Kolkata

ডাক্তার নীলার hobby গুলো হচ্ছে :- সংগীত, ভ্রমণ এবং সমাজসেবা। সাংসারিক, পারিবারিক ও পেশাগত কর্মব্যস্ততাকে পাশে রেখে‌ ভবিষ্যতে দেশী এবং বিদেশী শিল্পীদের সাথে আরও অনেক গান করার পরিকল্পনা ও ইচ্ছাও ব্যক্ত করেছেন তিনি।

বহু প্রতীক্ষিত এই মিউজিক ভিডিওটি পেয়ে আমরা সবাই খুবই আনন্দিত এবং গর্বিত। ডাক্তার নীলা যেন ভবিষ্যতে আরো অনেক সুন্দর সুন্দর গান উপস্থাপন করে আমাদের সবাইকে এভাবে মনোরঞ্জন করে যেতে পারেন সেটাই আমাদের আকাঙ্ক্ষা। তার সুন্দর ও সার্থক ভবিষ্যৎ কামনা করি এবং তার সমস্ত স্বপ্ন পূরণ হোক এটাই আমাদের প্রার্থনা।

রিভিউ:- ডাক্তার নায়লা আজিজ মিতা

Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0008.jpg
  2. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0007.jpg
  3. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0006.jpg
  4. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0005.jpg
  5. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0004.jpg
  6. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0003.jpg
  7. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0002.jpg
  8. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0001.jpg
  9. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/IMG-20231025-WA0000.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/music-review/2023/shopno-monee-jagee/


১৯৭১ সেই সব দিন – একটি পর্যালোচনা

by Shamsuddin Shafi | October 12, 2023 10:22 am

১৯৭১ সেইসব দিন’ বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছে অগাস্ট মাসে। অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরা শহরে BongOz Films এর বদৌলতে আমরা গত রবিবার এই সিনেমাটি উপভোগ করলাম। প্রথমেই BongOz Films কে ধন্যবাদ আমাদের এই সুযোগ করে দেয়ার জন্য।

সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত সিনেমাটি নির্মিত হয়েছে প্রয়াত নন্দিত অভিনেতা ও নাট্যকার ড. ইনামুল হকের গল্প অবলম্বনে। এটি পরিচালনা করেছেন তারই বড় মেয়ে অভিনেত্রী ও নির্মাতা হৃদি হক। ১৯৭১ সেই সব দিন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে নির্মিত একটি বাংলাদেশী রোমান্টিক নাট্য চলচ্চিত্র। প্রধন চরিত্রে আছেন ফেরদৌস আহমেদ, সজল নূর, লিটু আনাম, সানজিদা প্রীতি, সাজু খাদেম, হৃদি হক। সংগীত পরিচালনা করেছেন কলকাতার দেবজ্যোতি মিশ্র।

একাত্তরের সেই উত্তাল সময়ে তৎকালীন ঢাকা শহরের শান্তিবাগ এলাকার ১৭ নাম্বার বাড়িতে থাকা একটি যৌথ ফ্যামিলির মানুষের গল্প নিয়েই এই সিনেমা। সাথে পাশের বাড়ির একটি হিন্দু পরিবারও গুরুত্ব পেয়েছে গল্পে। ১৭ নাম্বার বাড়ির তিন ছেলে তাদের স্ত্রীরা দেশকে নিয়ে ভাবে ভিন্নভাবে। স্বাধীনতার পক্ষে-বিপক্ষে তাদের যুক্তিও আছে। তবে একটা সময় সেইসব কিছু ছাপিয়ে জীবন বাঁচানোই যখন মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়ায় সাথে দেশ স্বাধীনের জন্য সবকিছু তুচ্ছ করে যুদ্ধে নাম লেখানো সবই এসেছে বিশ্বাসযোগ্যভাবে। চিত্রায়ন এবং অভিনয়ে অবশ্যই মুন্সিয়ানার ছাপ ছিলো। অসাধারণ শ্রুতিমধুর বেশকিছু গানের দেখা ও শুনতে পারার অভিজ্ঞতা হয়েছে এই সিনেমায়, বিশেষ করে ‘যাচ্ছো কোথায়’

এইবার আসি এই সিনেমার কিছু অংশে যা আমার কাছে কিছুটা খারাপ লেগেছে। প্রথমেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ ছিলো একটি রাজনৈতিক যুদ্ধ। বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানের অবর্তমানে মুজিবনগর সরকারের নেতৃত্বে এই জনযুদ্ধ সংগঠিত হয়। কোথাও এর উল্লেখ নেই। মনে হয় সবাই বিচ্ছিন্ন ভাবে যুদ্ধ করছে কারো নেতৃত্বে নয়।

সিনেমায় ২৫শে মার্চ সন্ধ্যায় “রক্ত করবী” নাটকটির মহড়ায় শিল্পীরা গাইছে সেই বিখ্যাত গান -“”শোনো একটি মুজিবরের থেকে”I এটি শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে দ্বিতীয় গান যা মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় ভারত ও বাংলাদেশে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়।গানটি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশের মানুষকে অনুপ্রাণিত করে। আধুনিক এই সঙ্গীতের শিল্পী ও সুরকার ছিলেন অংশুমান রায়। গানটির গীতিকার ছিলেন গৌরীপ্রসন্ন মজুমদার যা লিখা হয় ১৩ই এপ্রিল এবং ২২ এপ্রিল ১৯৭১ তারিখে আকাশবাণী কলকাতায় প্রথম সম্প্রচারিত হয়। কিভাবে গানটি ২৫শে মার্চ তারিখে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে একদল শিল্পী গাইছে তা আমার বোধগম্য নয়।আমাদের জাতীয় ইতিহাসের শ্রেষ্ঠতম অধ্যায় হলো একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ। এই মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে জন্মলাভ করে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্থায়িত্বকাল যদিও ছিলো নয় মাস কিন্তু এর জন্য আমাদের ত্যাগ কিন্তু কম নয়। যুদ্ধ চলাকালে শহীদ হয়েছেন প্রায় ৩০ লক্ষ, প্রায় আড়াই লক্ষ নারী পাকিস্তান সেনাবাহিনী আর তাদের পদলেহী বিশ্বাসঘাতক দেশদ্রোহীদের নির্যাতনের শিকার হয়েছিল। যুদ্ধের সময় প্রায় এক কোটি শরণার্থীকে দেশ ত্যাগ করে ভারতে আশ্রয় নিতে হয়েছিল অবিশ্বাস্য মনে হলেও সত্যি, এই এক কোটি মানুষ দেশত্যাগ না করলে তাদের প্রত্যেককেই হয়ত এই দেশে হত্যা করা হতো। আমরা যে এমন এক ভয়াবহ সময় পার করেছিলাম ১৯৭১ এ তা এই সিনেমায় আমি পাইনি।

আমাদের শ্রেষ্ঠতম অধ্যায় একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ। আমরা এমনি এক দুর্ভাগা জাতি, এই মহান অধ্যায় নিয়ে এখন প্রচুর বিতর্ক। এই বিষয়ে সমস্ত বাঙালি যেখানে এক হওয়ার কথা আমরা সেখানে নিজেদের ফায়দা লুটতে বিভিন্ন শিবিরে বিভক্ত। এই সব দেখে দুঃখ লাগে। এইভাবে চলতে থাকলে পরবর্তী প্রজন্ম ১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ, এর ভয়াবহতা, আত্মত্যাগ কিছুই জানবে না, স্রেফ এটিকে একটি বিচ্ছিন্ন গন্ডগোল হিসেবে জানবে।

পরিশেষে বলতে চাই, ১৯৭১ – সেই সব দিন একটি পরিচ্ছন্ন এবং উপভোগ্য সিনেমা। এর নির্মাতা এবং কলাকুশলী সবাই ধন্যবাদ প্রাপ্য। সুদূর অস্ট্রেলিয়াতে বসে বাংলাদেশের এই সিনেমাটি আমাদের উপভোগ করতে দেয়ার জন্য BongOz Films এর সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/film-book-art-others/2023/1971-sei-sob-din/


নিকোলিতা জিতে নিলেন অড্রি ফেগান এনরিচমেন্ট গ্র্যান্ট

by Priyo Australia | October 11, 2023 9:08 pm

ইরাম নিকোলিতা হক জিতে নিলেন অস্ট্রেলিয়ান ক্যাপিটাল টেরিটোরি সরকারের ২০২৩ অড্রি ফেগান এনরিচমেন্ট গ্র্যান্ট

অষ্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত অষ্টম শ্রেণী পড়ুয়া কিশোরী ইরাম নিকোলিতা হক পেলেন অস্ট্রেলিয়ান ক্যাপিটাল টেরিটোরি সরকারের ২০২৩ অড্রি ফেগান এনরিচমেন্ট গ্র্যান্ট জিতে নিয়েছেন।

অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরার সাবেক পুলিশ প্রধান অড্রি ফেগানের নামে নামকরন করা এই অনুদানটি নেতৃত্ব গুণাবলী সমৃদ্ধ ব্যক্তিদের দাখিল করা প্রস্তাবনা পর্যালোচনা শেষে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় বিবেচিত প্রকল্প বা লক্ষ্যের বাস্তবায়নের জন্য দেয়া হয়।

অনুদানের অর্থে (১০০০ ডলার) ইরাম নিকোলিতা হক বেশ বিরল ও স্বল্প পরিচিত এক প্রতিবন্ধিতা বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ, সংশ্লিষ্টদের সাথে আলাপ ও গবেষণা পরবর্তীতে নিজের গবেষক ও শিল্পী স্বত্তা ব্যবহার করে ঐ প্রতিবন্ধিতা বিষয়ে তথ্যবহুল ও সহজে ব্যবহার উপযোগী পোষ্টার ও দেয়াল পত্রিকা তৈরি করবেন। এবং এই তথ্যবহুল উপস্থাপনা ও দেয়াল পত্রিকাগুলো নিকোলিতা ছড়িয়ে দিতে চান অস্ট্রেলিয়ার রাজধানীতে বসবাসরত কিশোরী-কিশোর, তরুণী-তরুন ও বিভিন্ন সংস্কৃতির নারী ও মায়েদের জমায়েতগুলোতে।

নিকোলিতা মনে করেন তার উদ্যোগটি একদিকে যেমন নানাভাবে তার নিজের বিকাশ ও দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে, অন্যদিকে তার প্রকল্প একটি খুবই স্বল্প পরিচিত ও প্রায় অজানা প্রতিবন্ধিতা বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী অঞ্চলে সচেতনতা তৈরি করবে ও সর্বোপরি একটি ইনক্লুসিভ ও সকলের জন্য অংশগ্রহণমূলক ও প্রবেশগম্য সমাজ ও সংস্কৃতি বিকাশে সহায়তা করবে।

Eram Nikolita Haque and  ACT's Deputy Chief Minister [1]

অস্ট্রেলিয়ান ক্যাপিটাল টেরিটোরির ডেপুটি চিফ মিনিস্টার ও মিনিষ্টার ফর উইমেন ইভেট বেরী তার চিঠিতে ইরাম নিকোলিতা হককে অভিনন্দন জানিয়েছেন। মিনিষ্টার ইভেট বের নিকোলিতা ও তার পরিবারের সকলকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন এক সাফল্য উদযাপনী চায়ের দাওয়াতে। ১১ অক্টোবর ২০২৩ ক্যানবেরা মিউজিয়াম ও গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত সেই চায়ের দাওয়াতে নিকোলিতা তার নিজের স্বপ্ন ডেপুটি চিফ মিনিস্টার ও অন্যান্যদের কাছে শেয়ার করার পাশাপাশি তাদের কাছ থেকে গ্রহণ করেছেন অমুল্য পরামর্শ যা তার বর্তমান ও ভবিষ্যৎ লক্ষ্য ও পরিকল্পনাসমুহ বাস্তবায়নে সহায়তা করবে।

অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী নৃবিজ্ঞানী নাদিমুল হক মন্ডল ও রেজিনা সুলতানের জ্যেষ্ঠ কন্যা ইরাম নিকোলিতা হক তার কাজ ও প্রকল্পের মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় বসবাসরত বিবিধ সংস্কৃতির মানুষজনের জীবনে ইতিবাচক অবদান রাখতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

নিকোলিতার জন্য রইলো প্রিয় অস্ট্রেলিয়া পরিবারের শুভ কামনা।

Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/10/Photo-3-Eram-Nikolita-Haque-and-ACTs-Deputy-Chief-Minister-1-of-1-scaled.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/community-news/canberra-news/2023/eram-nikolita-haque-audrey-fagan-enrichment-grant/


বাদল-দিনে’ – মাথানষ্ট পর্ব ২ – পিলু রাগে ভালোবাসার অপরূপ

by Shahadat Manik | August 17, 2023 11:12 am

হঠাৎ করেই বৃষ্টি শুরু হলো। একেবারে ঝুম ঝুম বৃষ্টি যাকে বলে। ঝরছে তো ঝরছেই। বৃষ্টি আর বৃষ্টি! হবেই না বা কেন? বর্ষায় সময়, বৃষ্টি তো হবেই। পছন্দের বর্ষা, পছন্দের বৃষ্টি। এই বৃষ্টি, এই বর্ষা, স্বভাবজাত কারণেই “একা” কাউকে বেশ উদাস করে দিয়ে যায়। হয়তো সেই একা উদাসী বৃষ্টি বিলাসী মনটাকে বুঝেই – বৃষ্টি গেয়ে উঠে “মানে না মন তোমাকে ছাড়া” – বাদল দিনে বাদল ধারা!

ঝিরি ঝিরি ঝরে বারি
সবুজ পাতার বুকে
কেঁপে ওঠে পুস্প কদম
ভালোবাসায় ঝুঁকে

আমাদের Jalsha Studio (https://www.youtube.com/JalshaStudio) থেকে ‘বাদল-দিনে’ বর্ষা ভিত্তিক অ্যালবামটির দ্বিতীয় গান (টাইটেল সং) প্রকাশিত হলো “বাদল দিনে” শিরোনামেI বিখ্যাত ক্লাসিক্যাল সংগীত গুরু পণ্ডিত তুষার দত্তের কণ্ঠে। এই গানের পরতে পরতে তুষার দত্তের সূক্ষ সুক্ষ কণ্ঠের কাজগুলি বেশ উপভোগ্য, বেশ শ্রুতিমধুর। লাইট ক্লাসিকাল গান প্রিয় শ্রোতাদের ভালো লাগবেই, এই নিশ্চয়তা দিতে পারি।

গানটিতে সুর দিয়েছেন রবিন গুডা’। তাঁর সুর সম্পর্কে এর আগেও বলেছি। রবিন তাঁর এই কাজের মাধ্যমে বেঁচে থাকবেন – এই সুর, এই সঙ্গীত আয়োজন তাকে বাঁচিয়ে রাখবে সঙ্গীত দুনিয়াতে। পরিচিতরা তাঁর সৃষ্টিশীলতা সম্পর্কে ভালো ভাবেই জানেন। অদ্ভুত এক নেশা দেয়া আছে এই গানের প্রতিটি “শব্দ সুরে”।

শুদ্ধ সঙ্গীত কি কেউ এখন আর শুনে? আমার মত অনেকেই শুনে হয়তো। শুনতে ভালোবাসে। উপভোগ করে সঙ্গীতের কাব্যিকতা।

পিলু রাগে প্রেম – বিরহ বিলাস! কখনো “ভালোবাসার এ অপরূপ – সে তো জানে না”, কখনো “বাদল দিনে বরষা বরণ – সে তো জানে না” বিরহের খুবই সহজ সাধারণ অনুযোগ অভিমানের কথাগুলি তুলে আনার চেষ্টা করেছেন গীতিকার। তাতেই এক অসাধারণ সূর সংযোজন করেন রবিন গুডা এবং দরাজ ক্লাসিক্যাল কণ্ঠে তুলে নিয়ে মহিমান্বিত করেছেন পণ্ডিত তুষার দত্ত। সব কিছু মিলে গানের কথাকে ছাড়িয়ে গেছে এই গানটি।

সঙ্গীত নিয়ে যখন কথা হয় বন্ধুদের সাথে, তখন ভালো লাগে তাঁদের শুদ্ধ সঙ্গীতের প্রতি শুভ প্রীতি দেখে। গানটির গীতিকার একজন গীতিকবি। গীতিকারের পক্ষ থেকে এই গানের সাথে সংশ্লিষ্ট সবাইকে অশেষ কৃতজ্ঞতা। গানের কথা গুলি হয়তো আরো অনেক ভালো হতে পারতো।

শুদ্ধ সঙ্গীতের জয় হউক।

রেটিং: ৯.৫/১০

Singer: Pandit Tushar Dutta
Lyric: Shahadat Manik
Tune: Robin Guda
Sitar: Rahul Chatterjee
Sarengi: Debashis Haldar
Keyboard: Shubendu Das
Tabla: Pinaki Chakraborty
Harmonium: Abhijit Sengupta
Recorded at Kusum Studio

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/music-review/2023/%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%a6%e0%a6%b2-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a7%87-%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a5%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a6%b7%e0%a7%8d%e0%a6%9f-%e0%a6%aa%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%ac/


Bangladesh Night and Charity Dinner 2023

by Priyo Australia | August 15, 2023 12:27 pm

The Bangladesh Australia Association Canberra (BAAC) is delighted to announce their highly anticipated annual flagship event, “Bangladesh Night 2023.” This exciting event will take place at the prestigious Canberra Southern Cross Club Woden, creating a memorable evening filled with cultural celebrations, entertainment, and delicious cuisine. We invite you to join us for this special occasion as we come together to celebrate the vibrant Bangladeshi culture and strengthen the bond within our community. Mark your calendars for an unforgettable night of joy, unity, and cultural exchange at Bangladesh Night 2023.  

EVENT DATE:
Saturday, September 2, 2023 – 18:00 to 22:00

VENUE:
Event Location: Canberra Southern Cross Club, Woden.
Address: 92-96 Corinna Street, Woden
Location Map Link: https://goo.gl/maps/vexGXwQ3VsnrW79j7

Please book your spot today.

Entry Fees: Adults: $60 Students: $50 Children (Aged 5-12 years): $20

Payment Details:

Account Name: BAAC

BSB: 082968

Account Number: 392069356

Please include in the payment description: Your Name, Suburb, Adult: 00, Child: 00

[1]

More details at https://baac.org.au/[2]

Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/08/365219659_10231790627538579_3629731711412517131_n.jpg
  2. https://baac.org.au/: https://baac.org.au/

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/events/canberra-event-list/2023/bangladesh-night-and-charity-dinner-2023/


বাদল দিনে বাদল ধারা

by Tarik Zaman | August 7, 2023 1:45 pm

ক্যানবেরার ছোট্ট বাঙালি কমিউনিটিতে বেশ কয়জন গুণী কবি- সাহিত্যিক, গীতিকবি, কণ্ঠ শিল্পী, তবলা বাদক আছে। ফেসবুক ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে এদের সরব ও নিরব উপস্থিতি দেখা যায়। এদের পরিবেশনা পান্না আর আমি খুব উপভোগ করি। শিল্প সংস্কৃতির সাথে জড়িত মানুষদের আমি ব্যাক্তিগত ভাবে শ্রদ্ধা করি ও তাদের সামনে যতটুকু করি, পিছনে তার বেশি স্তুতিবাদ করি। তার কারন নিজে চেষ্টা করে এই লাইনে কিন্ডীও পাশ করতে পারি নাই, তাই এই লাইনের গ্র্যাজুয়েটদের ঈর্ষা করি ও ভালবাসি।

পেশায় অস্ট্রেলিয়া সরকারের পাবলিক সারভেন্ট, শাহাদত মানিক, যিনি মানিক ভাই নামে পরিচিত- তিনি কবিতা লিখেন, কবিতার বইও ছেপেছেন, এই পর্যন্তই জানতাম। কবিতায় তিনি তাঁর জন্মস্থান চাঁদপুরের ডাকাতিয়া নদীকে প্রায়ই টেনে আনেন যা নিয়ে আমি তাঁকে ফোঁড়ন কাটি। তিনি হাসেন। মানুষের সংলাপ- তাঁর এই কবিতার বইটা আমি মাঝে মাঝেই খুলে দেখি। ছোট ও ঝর ঝরে শব্দ- কিন্তু গভীর অর্থবহ। প্রিয় অস্ট্রেলিয়া নামে তাঁর একটা ওয়েব পেজ আছে- সেখানে আমি মাঝে কয়টা লেখা দিয়েছিলাম, কিন্তু আমার মত কুইড়া বেশি লেখা দিতে পারি নাই।

সেদিন দেখি ইউটিউবে মানিক ভাইয়ের লেখা গান। সুর দিয়েছেন ক্যানবেরার আর এক সঙ্গীতজ্ঞ ডাঃ রবিন গুডা। রবিন দার কণ্ঠের গান মানেই উচ্চ মার্গীয়- সামনে বসে শোনার অনুভুতি অন্যরকম। এই বিদেশ বিভূঁইয়ে এতো সংগ্রামের মাঝেও সঙ্গীত তাঁকে ছেড়ে যায় নাই। এর আগেও রাবিন দা গানে সুর দিয়েছেন। গানে কণ্ঠ দিয়েছেন ওপার বাংলার পণ্ডিত তুষার দত্ত, যিনি রবিন দা’র গানের উস্তাদও বটে।

এই গানটা প্রথমবার শোনার পর মনে হচ্ছিল গানটা যে মুড বা রাগে সেট করা- কখনও শুনেছি কিন্তু মনে করতে পারছিলাম না। কয়েক দশক আগে গীটারের উস্তাদ হাবিবুর রহমান রেজার কাছে দরবারি, বিলাবল, ভুপালি- এইসব কিছুদিন শিখেছিলাম- এবং দৌড় ওই অব্দি। তাই এই গানের মুডটা জানতে মানিক ভাইকে জিজ্ঞাসা  করলে তিনি বললেন- পিলু। শুনেছি, গানে সিজনাল মুড আনতে এই রাগ খুব জনপ্রিয়। তখন মনে হল হোস্টেলে মাঝে মাঝেই আমি রবি শঙ্করের সেতারের টেপ শুনতাম- অন্য রুমমেটরা লুকিয়ে হাসত। হ্যা, ওইখানে এইরকম সেতার বাদন ছিল- মেনাহেম নামের কারও সাথে। যা ই হোক, আমার ওই অব্দি ব্যাপ্তি। কিন্তু আমি গানের একজন নিবেদিত শ্রোতা- আমার শত্রুও স্বীকার করবে। পান্না আমাকে বলে, গান ভাল লাগে শোন, অত কিছু জানতে চাও ক্যান? আমি বলি, তাহলে একটা গানের সম্পূর্ণটা পাওয়া যায়; অর্ধ প্রাপ্তিতে আমি খুশি হই না।

বাদল দিনে বাদল ধারা
মন মানে না – মন মানে না
মানে না মন তোমাকে ছাড়া

ঝিরি ঝিরি ঝরে বারি
সবুজ পাতার বুকে
কেঁপে ওঠে পুস্প কদম
ভালোবাসায় ঝুঁকে
ভালোবাসার এ অপরূপ
সে তো জানে না
মন মানে না – মন মানে না
মানে না মন তোমাকে ছাড়া 

মনের মায়ায় মোদির বারি
অধর ছোয় বাদলে
স্বপন সায়র দোলায় দোলে
মিলিয়ে জলে জলে
বাদল দিনে বরষা বরণ
সে তো জানে না
মন মানে না – মন মানে না
মানে না মন তোমাকে ছাড়া

গীতিকার বর্ষা ঋতু এবং তার প্রিয়াকে একসাথে পেতে চাইছেন, কিন্তু প্রিয়া তা বুঝে না। বাদল দিনে মন মানে না তোমাকে ছাড়া- এই করুণ আর্তিই সুরে সুরে ফুটিয়ে তুলেছেন পণ্ডিত তুষার দত্ত। মন মানে না- এই শব্দ কয়টাকে তিনি কত ভাবে যে গাইলেন ও ঘুরে ফিরে বার বার ওই আকুতি- তোমাকে ছাড়া। গানের শেষাংশে তিনি ফিরে এসেছেন আরও জোড়াল কণ্ঠে তাঁর উস্তাদি কায়দায়- তোমাকে ছাড়া। গানের চিত্রায়ন বা ভিডিও আমার কাছে বিশেষ গুরুত্ব বহন করে না; তার কারন সঙ্গীত অনুভবের বিষয়। দেখার নয়।

আমি গান শুনি; ভালবাসি তার সুর ও বাণী আর যথার্থ গায়কী।

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/music-review/2023/%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%a6%e0%a6%b2-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a7%87-%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%a6%e0%a6%b2-%e0%a6%a7%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%be/


আগস্টের ছয় তারিখে ওপেনহেইমারের ‘লিটল বয়’এর তান্ডব

by Dilruba Shahana | August 6, 2023 1:00 am

দিলরুবা শাহানা: একদিন পৃথিবীতে ডাইনোসররা ঘুরে বেড়াতো কোথায় তারা আজ? নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে তাইতো। মানুষ এভাবে নিশ্চিহ্ন হবে না কারন মানুষ সেরা জীব, বুদ্ধিমান প্রাণী তার সবকিছু বিস্মৃতির অতলে হারায় না। তাই মানুষের বিস্ময়কর সুকীর্তির পাশাপাশি কুকীর্তির  স্মৃতি জাগানিয়া ছয় আগস্ট প্রতি বছর মানুষের বিবেকের দরজায় কড়া নাড়ে।

গভীর বিশ্বাস এই একমাত্র আত্মরক্ষার যুদ্ধ ছাড়া আর কোন যুদ্ধই কোন মঙ্গল বয়ে আনেনা।

দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধে ৯ই মে’ জার্মানীর পতন ঘটে তৎকালীন সোভিয়েট বাহিনীর হাতে। পাঁচবছর ব্যাপী চলা যুদ্ধে হিটলার বাহিনী ৬০লক্ষ ইহুদী মানুষকে হত্যা করে এবং এই যুদ্ধের ফলশ্রুতিতে সরাসরি অস্ত্রের আঘাতে ও পরোক্ষে ক্ষুধামন্দায় কোটির উপর সোভিয়েত জনগণ প্রাণ হারায়। তখনকার ইউএসএসআর আজকের রাশিয়া ও তার প্রতিপক্ষ ন্যাটো আবার যুদ্ধ শুরু করেছে উক্রাইন(ইউক্রেন)কে ঘিরে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর রাশিয়াতে নারী-পুরুষের আনুপাতিক হারে যে খামতি দেখা দেয় তাতে অনেক নারীই ঘরবাঁধার জন্য পুরুষ সঙ্গী পাননি। সে সব স্মৃতি ভুললে চলবে না, চর্চ্চা করতে হবে বারবার।

সম্প্রতি প্রয়াত বিশ্ববন্দিত চেক লেখক মিলান কুন্ডেরা জরুরী একটি কথা বলেছেন লেখক হওয়া মানে সত্য আবিষ্কার করা। কিংবা ক্ষমতার বিরুদ্ধে মানুষের লড়াই হচ্ছে ভুলে যাওয়ার বিরুদ্ধে মনে রাখার লড়াই।

কুন্ডেরার ভাষ্যকে এভাবেও বলা যায়‘মানুষের বড় লড়াই হচ্ছে বিস্মৃতির সাথে স্মৃতির লড়াই’।

কি ঘটেছিল ছয় আগস্ট ১৯৪৫সালে? ছয় আগস্ট একই সাথে মানুষের কীর্তি আর কুকীর্তির বয়ান। মানুষ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষে এসে অসাধারন এক অর্জন করে।  পারমানবিক  বোমা তৈরীতে সক্ষম হয় আমেরিকা। তার সফল মহড়াও হয় জুলাই মাসে নিউ মেক্সিকোতে। অল্প কয়দিন পরেই ১৯৪৫এর ছয়ই আগস্ট ‘লিটল বয়’ নামের পারমানবিক বোমাটি আমেরিকা নিক্ষেপ করে জাপানের হিরোশিমায়।

সে বোমার তান্ডবে তাপমাত্রা হয় ৪০০০ডিগ্রী সেলসিয়াস। তিন কি চার কি.মি. জায়গা তাৎক্ষনিকভাবে ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়। বোমার রেডিয়েশনে বংশানুক্রমে মানুষ ভুগেই যাচ্ছে । নয়ই আগস্ট আমেরিকার দ্বিতীয় পারমানবিক বোমা ‘ফ্যাট ম্যান’ আঘাত হানে জাপানের নাগাসাকি শহরে। এসব নিয়ে অনেক বই লেখা হয়েছে, সিনেমা বানানো হয়েছে। সময়ে সময়ে ঝড় তুলে বিষয়গুলো।

খুব সতর্কতা ও সাবধানে তৈরী এ্যাটোমিক আর্খাইবের(ARCHIVE) হিসাব মতে ওই মূহূর্তে, ওই জায়গায় মারা যায় ৬৬,০০০হাজার মানুষ।

পারমানবিক বোমায় সৃষ্ট রেডিও এ্যাক্টিভ পার্টিকেল নিয়ে ‘কালো বৃষ্টি’ ঝরে ব্যাপক এলাকায় দূষণ ছড়ায়। ইউএস-জাপানীজ রেডিয়েশন এফেক্টস রিসার্চ ফাউন্ডেশন ইঙ্গিত দেয় যে পারমানবিক বোমা নিক্ষেপের প্রথম ৪মাসের মাঝে ৯০,০০০ হাজার থেকে ১৬৬,০০০ মানুষ মারা যায়।

পারমানবিক গবেষণায় অনেক অর্থব্যয় শুধু নয় তারও চেয়ে বড় মানবিক মূল্য চুকাতে হয়।

 আমি ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে একটি ঘটনা তুলে ধরছি একবার আমার এক রুশ বান্ধবীর সাথে তার পরিচিত বন্ধু বা আত্মীয় একজনকে দেখে কি রকম এক ভীতিকর অস্বস্থি হল। দীর্ঘদেহী, শক্ত সমর্থ স্বাস্হ্যবান এক যুবক কিন্তু ওর মাথায় কোন চুল নাই, ভুরু নাই, চোখের পাপড়িও নাই। পরে বান্ধবীর কাছে ছেলেটির বিষয়ে কৌতূহল প্রকাশ করলে ও জানায় এক ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কাহিনী। এক সময়ে ছেলেটির বাবা পরমানু বিজ্ঞানী হিসাবে কাজ করছিলেন । গবেষণার কাজ করতেন পারমানবিক কেন্দ্রে। তখন ভদ্রলোক বিয়েও করেন নি। পরে উনি পেশা বদল করে শিক্ষকতায় যোগ দেন। বিয়ে করেন, সন্তান হয়। অজান্তে কখন যেন ভদ্রলোক পারমানবিক রেডিয়েশনের  বা বিক্রিয়ার শিকার  হয়েছিলেন তা ধরা পড়েনি কখনো। তারই ফলশ্রুতিতে তার সন্তানের জন্ম হয় নির্লোম মানব হিসাবে। এই হচ্ছে পারমানবিক শক্তির ভয়ংকর প্রভাব। এ ঘটনাই বলে হিরোশিমা-নাগাসাকির মানুষেরা কি ভয়ংকর ও ভয়াবহ সব অভিজ্ঞতা পার হয়েছেন।  এখনও হয়তো হচ্ছেন কে জানে?

মানুষ কিন্তু লড়াই করে বিস্মৃতির বিরুদ্ধে। তাইতো  হলিউডের বিখ্যাত চিত্রপরিচালক ক্রিস্টোফার নোলান আজও সিনেমা বানিয়ে পারমানবিক বোমার স্রষ্টা বৈজ্ঞানিক ওপেনহেইমারের বিবেকের যন্ত্রণার বয়ান তুলে ধরেন যা আমাদের চেতনার জগতকে ধাক্কায় নাড়িয়ে দেয়। ওপেনহেইমারের আত্মগ্লানি খাঁটী, নিখাদ। নোলান তা তার সিনেমাতে এই কষ্টের ছবি নিখুঁতভাবে তুলে ধরেছেন।

তবে মানুষ সৃষ্টির সেরা  জীব এটা অনস্বীকার্য। তাইতো  পারমানবিক কর্মকান্ড বিষয়ে মানুষের বিরামহীন প্রচারণা ও প্রতিবাদের ফলে ১৯৯৬ COMPREHENSIVE NUCLEAR-TEST-BAN TREATY স্বাক্ষরের জন্য তৈরী হয়। এই আন্তর্জাতিক চুক্তি নিউক্লিয়ার টেষ্ট যে কোন জায়গায় যে কোন সময়ের জন্য নিষিদ্ধ করছে।

মিলান কুন্ডেরার কথা মত ক্ষমতার বিরুদ্ধে লড়াই মানে বিস্মৃতির বিরুদ্ধে স্মৃতির লড়াই চালাতেই হবে। মিথ্যার বিরুদ্ধে সত্যের জয় হবে যদি যদি তা বিস্মৃতর আড়ালে না হারায়। অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায়ের জয় হবে যদি মানুষ সংগঠিত অন্যায়  ভুলে না যায়।

যুদ্ধের কারনে তিউনিসিয়ার দেশত্যাগী  শিক্ষিত মানুষ খালেদ ভিনদেশে ট্যাক্সী চালায়। ওর ট্যাক্সীতে যেতে যেতে শুনলাম ওর ভাষ্য। যুদ্ধ খুব খুব খারাপ! আফ্রিকায় কলোনিয়ালিজমের উপর তথ্যপূর্ণ  ছোট্টখাটো  এক ভাষন শুনালো। বললো সে আফ্রিকাতে যু্দ্ধ ছিল, মধ্যপ্রাচ্যে যুদ্ধ ছড়ালো এখন ইউরোপে যুদ্ধ!

আমরা আশা করবো ১৯৪৫এর ছয়ই আগস্টের মত আবার যেন কোন ‘লিটল্ বয়’ কোন তান্ডব, কোন ধ্বংসযজ্ঞ  শুরু না করে।

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2023/%e0%a6%86%e0%a6%97%e0%a6%b8%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%9b%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%a4%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%bf%e0%a6%96%e0%a7%87-%e0%a6%93%e0%a6%aa%e0%a7%87%e0%a6%a8%e0%a6%b9/


বহে যায় দিন – Every person is born with talent

by Afzal Hossain | July 25, 2023 5:08 pm

> বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব[1] >

ছয় ।। Every person is born with talent

এ কথা সত্যি যে প্রত্যেক মানুষের ভেতর কম-বেশী প্রতিভা বা ট্যালেন্ট আছে । কেনো না প্রত্যেকটি মানুষই প্রতিভা নিয়ে জন্মায় Every person is born with talent | তবে কারোর ভেতর সেই প্রতিভা থাকে প্রস্ফুটিত ফুলের মতো বিকশিত, ফলে সৌরভ ছড়ায় বাতাসের গায়ে- যা অন্য সকলে বাইরে থেকে তার আচার-আচরণে, চাল-চলনে, এমন কি কথা-বার্তায় দেখতে পায়, কিংবা উপলব্ধি করতে পারে। আবার উল্টোদিকে অনেকের ভেতর সেই প্রতিভা থাকে সুপ্ত বা ডরম্যান্ট – যা কিনা ‘ঘুমিয়ে আছে শিশুর পিতা সব শিশুরই অন্তরে’-র মতো । সুযোগ-সুবিধা কিংবা উপযুক্ত পরিবেশের জন্য চাতকের মতো প্রতীক্ষায় থাকে কখন আসবে সেই সূবর্ণ সময় । সেই সূবর্ণ সময় এবং পরিবেশ পেলেই ফুটো করা বায়ু ভর্তি বেলুনের ভেতর থেকে যেমন হুড়মুড় করে বাতাস বেড়িয়ে আসে, সেই রকম তাদের ভেতর জগত থেকে বেড়িয়ে আসে প্রতিভা । তখন তাদের অই প্রতিভার বিচ্ছুরিত আলোয় আলোকিত হয় চারপাশ । অথচ তাদের মধ্যে বেশীর ভাগই জানে না এতোদিন কি করে এমন প্রতিভা লুকিয়ে ছিলো তাদের ভেতর অন্তরের গভীরে । তারা নিজেরাই অবাক, বিস্মিত ।

কিছু কিছু প্রতিভা বিকাশের মোক্ষম পরিবেশ হচ্ছে এই পরবাস । আমরা যারা দেশ ছেড়ে পরবাসে আছি, তারা ক’জনইবা আগে থেকে রান্না-বান্না কিংবা সঙ্গীত চর্চায় পারদর্শী হয়ে এসেছিলাম । হাতে গোণা গুটি কয়েক মাত্র । বেশীর ভাগই আনাড়ী । কিন্তু বিদেশে এলে প্রতিভার সেই সব দরোজা খুলে যায়, কারোর বেলায় অনিচ্ছায়, আবার কারোর বেলায় সখের বশে। পরবর্তী সময়ে আমরা অনেকেই হয়ে উঠি হয় চৌকশ সঙ্গীত শিল্পী কিংবা পাকা রাঁধুনি । আমার স্ত্রী এবং আমি যখন সেই ১৯৮৪ সালের শুরুতে এই ক্যানবেরায় এসেছিলাম, তখন আমরা কেউই ভালো রান্না করতে পারতাম না। দেশে সেই সুযোগ ছিলো না খুব একটা, বিশেষ করে আমার বেলায়। বাংলাদেশের সামাজিক পরিবেশে ক’জন পুরুষ রান্না শেখে। সংখ্যায় খুবই নগন্য । নেই বললেই চলে। অথচ বিদেশে এসে আমাদের, অর্থাৎ এই পুরুষদের, পরিস্থিতির চাপে পড়ে রান্না শিখে নিতে হয়েছে । এখন আমাদের ভেতর অনেকেই বড় বড় অনুষ্ঠানে রান্না করে তিন-চার শ’ অতিথিকে অনায়াসে পেট ভরে খাইয়ে দিতে পারেন।

একসময় আমিও মোটামুটিভাবে বেশী লোকের বিভিন্ন ধরনের রান্নার নিয়ম-কানুন রপ্ত করে নিয়েছি। পরোক্ষ বা প্রত্যক্ষ ভাবে আমি যাদের কাছ থেকে বড় বড় অনুষ্ঠানের জন্য রান্না শিখেছি, তাদের মধ্যে আলী আকবর ভাই (উনি তখন সপরিবাবে ছিলেন, এখন ঢাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন), জিল্লুর ভাই (জিল্লুর রহমান, এখনও এখানেই আছেন), তারা ভাবী (মিসেস আনোয়ারা বেগম, মরহুম ফকরুল আলম মিন্টু ভাইয়ের স্ত্রী, সিভিকের “শালিমার’ ইন্ডিয়ান রেস্টুরেন্টের মালিক), মরহুম ডক্টর গোলাম কিবরিয়া (উনি ১৯৮৬ সালের শেষ দিকে নিউ ক্যাসেলে স্ত্রী ফ্রান্সিসের সঙ্গে সাঁতার কাটার সময় সমুদ্রে ডুবে ইন্তেকাল করেন, ইন্নালিল্লাহে……. রাজেউন) ভাইয়ের নাম উল্লেখ করার মতো । তাছাড়া রোকেয়া ভাবী (মিসেস হাসমত আলী) এবং দুই নাজমা ভাবী (মিসেস জিল্লুর রহমান এবং মিসেস ডক্টর মোখলেসুর রহমান)-র কাছে শিখেছি মিষ্টি বানানো। কোনো সন্দেহ নেই যে, এইসব ভাবীরা খুব ভালো রান্না করেন এবং বিভিন্ন ধরনের মিষ্টি বানাতে পারেন ।

যাহোক, দু’একটা ঘটনার কথা উল্লেখ না করলেই নয়। সেই সময় বাবু ভাই (ফকরুল আহসান বাবু, একসময় আবাহনী ক্লাবের উইকেট কীপার ছিলেন এবং ব্যক্তিগত জীবনে ডক্টর নীলিমা ইব্রাহীমের মেয়ের জামাই) ডেভেলাপমেন্ট ইকোনোমিক্সের ছাত্র ছিলেন এবং ‘টোড হল’-এ থাকতেন । প্রথম দিকে উনি একাই ছিলেন । তখন ভাবী এবং বাচ্চারা কেউ আসেনি । উনি রান্নার ‘র’-ও জানতেন না । টোড হলে গিয়ে তাকে রান্না করে দিতাম, তবে শনিবার এবং রোববার উনি প্রায়ই আমাদের সঙ্গে খেতেন। একবার উনি অনুরোধ করলেন আমি যেনো এক টুকরো কাগজে ডাল রান্নার রেসিপি লিখে দেই । একদিন বাবু ভাইয়ের হলে গিয়ে দেখি উনি আমার হাতের লেখা সেই রেসিপির কাগজটা চুলার পেছনের দিকের দেওয়ালে ঝুলিয়ে রেখেছেন । জিজ্ঞেস করতেই একগাল হেসে বললেন, বারবার রুমে গিয়ে যাতে দেখতে না হয়, তাই এই ব্যবস্থা । সেদিন আমি প্রচন্ড হেসেছিলাম এই কারণে যে ভাগ্যিস টোড হলের অন্য আর সবাই বাংলা পড়তে পারে না । পরে অবশ্য উনি বেঁচে থাকার জন্য কিছু কিছু রান্না শিখেছিলেন ।

গত আশির দশকের মাঝামাঝি থেকে শেষ অবধি প্রতি বছরের অক্টোবর-নভেম্বর মাসে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে পালন করা হতো ‘বাংলাদেশ নাইট’ । বেশীর ভাগ অনুষ্ঠান হতো ফরেষ্ট সাবার্বের ‘ইটালো-অষ্ট্ৰেলিয়ান’ ক্লাবে। সেই সব অনুষ্ঠানে সাংস্কৃতিক পর্বের সঙ্গে ছিলো বাংলাদেশের, বিভিন্ন রকমের মুখরোচক সুস্বাদু খাবার। আলী আকবর ভাই, জিল্লুর ভাই, মরহুম ডক্টর গোলাম কিবরিয়া ভাই – এক এক জন এক এক বছর তিন-চার শত অতিথির পুরো রান্নার দায়িত্ব পালন করতেন । অবশ্য ভাবীরা তৈরী করতেন মিষ্টি জাতীয় খাবার।

১৯৮৪ সাল থেকে ১৯৮৬ সাল পর্ঝন্ত আমি ছিলাম বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া এসোসিয়েশনের সাংস্কৃতিক সম্পাদক । তখন বাংলাদেশ হাই কমিশনের কাউন্সিলর ছিলেন জনাব রাশেদ (তাঁর পুরো নাম মনে করতে পারছি না) । তাঁর স্ত্রী হলেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী মিসেস রেবেকা সুলতানা । আমি যে কোন অনুষ্ঠানের জন্য রেবেকা ভাবীকে টেলিফোন করলেই প্রাথমিক শুভেচ্ছার পর উনি সরাসরি জিজ্ঞেস করতেন কোথায়, কবে, কখন এবং কোন অনুষ্ঠানে গান গাইতে হবে । উনি কোনোও দিন মানা করেন নি, বরং উৎসাহ দিয়েছেন, অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন এবং অনুষ্ঠান সাজানোর জন্য আমার দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন । এতো বড় মাপের শিল্পী হয়েও তিনি এইসব ছোটখাটো অনুষ্ঠানে একাধিক গান গেয়ে দর্শক-শ্রোতাদের মনোরঞ্জন করেছেন, আনন্দ দিয়েছেন । তবে সেইসব দিনগুলোতে আমাদের মধ্যে অনেকেই ছিলেন যারা হয়তো দেশে থাকাকালীন সময়ে কোনোদিনও ‘সা রে গা মা পা ধা নি সা’-র চর্চা করেননি, কিন্তু তারাও স্টেজে উঠে সাবলীলভাবে এবং নিঃসংকোচে কোরাস গানে অংশগ্রহন করেছেন। এদের মধ্যে জয়নাল ভাই (জয়নাল আবেদীন, এখনও ক্যানবেরাতেই বসবাস করছেন), এজাজ (নাসের এজাজুল হক, সেই সময় এ-এন-ইউ-র পি-এইচ-ডি-র ছাত্র) এবং তপন ভাই (তপন মির্জা, পরে

এখান থেকে চলে গেছেন অন্যত্র) উল্লেখযোগ্য। তবে রুবী ভাবী (মিসেস ফজলুর রহমান । ফজলুর রহমান তখন ছিলেন এ-এন-ইউ-তে কেমেস্ট্রির পি-এইচ-ডি-র ছাত্র, বর্তমানে আমেরিকায় সপরিবারে বসবাস করছেন) অত্যন্ত সুন্দর গান গাইতেন । রুবী ভাবী একসময় জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের তুখোড় সঙ্গীত শিল্পী ছিলেন । মাঝে মধ্যে দেখা যেতো দর্শকের চেয়ে স্টেজের সঙ্গীত শিল্পীর সংখ্যাই বেশী। অনেকে আবার বক্তা হিসেবেও নাম লিখিয়েছিলেন । রবীন্দ্র-নজরুল জন্ম-জয়ন্তী কিংবা মৃত্যু দিবস, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস অথবা শহীদ দিবস উপলক্ষ্যে যেকোনোও অনুষ্ঠানে কিছু বলার জন্য অনুরোধ করলে দেখা যেতো অনেকেই মাইক্রোফোন হাতে পেলে আর ছাড়তে চাইতেন না ।

গত শতকের আশির দশকে ক্যানবেরায় মুষ্টিমেয় বাংলাদেশীদের ভেতর ছিলো এক ধরনের আত্মীয়তার নিবীড় সম্পর্ক । আমরা সেই সময় সুযোগ-সুবিধা মতো ‘বারবিকিউ’-র আয়োজন করতাম আশেপাশের বিভিন্ন পার্কে । কোনোও কোনোদিন চলে যেতাম ‘কটার ড্যাম’ কিংবা ‘করিন ড্যাম’-এর পিকনিক স্পটে। ভাবীদের দায়িত্ব ছিলো নিজেদের বাচ্চা সামলানো । তারা সপ্তাহের সমস্ত ক্লান্তি ভুলে মেতে উঠতেন তুমুল গাল-গল্পে । ভাইয়েরা ব্যস্ত থাকতেন মাছ ধরা আর বার-বি-কিউ রান্নায় । অবশেষে এক ধরনের আনন্দ-অনুভূতির পরশ সারা গায়ে মেখে ভর বিকেলে ফিরে আসতাম যার যার ঘরে ।

সেইসব দিনগুলোতে লেক বার্লি গ্রীফিনে কার্ব (দেখতে বাংলাদেশের রুই মাছের মতো) ধরতে যেতেন অনেকেই । মুন্সি ভাই (মুন্সি আনোয়ারুল ইসলাম, তখন ফরেস্ট্রিতে মাস্টার্সে পড়াশুনা করতেন। বর্তমানে বাংলাদেশে ফরেস্ট্রি ডিপার্টমেন্টের একজন উর্ধ্বতম কর্মকর্তা) এবং তাঁর স্ত্রী (হেলেন ভাবী), হাসমত ভাই ও আলী আকবর ভাই ছিলেন অন্যতম । আমরাও যেতাম, তবে মাছ ধরার চেয়ে ‘ফান’ হতো বেশী । যেদিন ফজলুর রহমান যেতেন, সেদিন কেউ কোনো মাছ পেতেন না। কারণ ওনাকে সবাই দোষারোপ করতেন লাউড ভয়েসের জন্য । উনি সারাক্ষণ জোরে জোরে এতো বেশী কথা বলতেন যে পানির গভীরে থেকে হয়তো মাছেরাও তার সব কথা শুনতে পেতো। ফলে ধরা পড়ার ভয়ে আশেপাশে কোনো মাছ আসতো না ।

একসময় আমরা কয়েক পরিবার মিলে রাতে, বিশেষ করে শুক্রবার, কবিতা পাঠের আসর আয়োজন করতাম । তবে বেশীর ভাগ আসর বসতো ডক্টর আবেদ চৌধুরী (স্বনামধন্য ‘জীন’ বিজ্ঞানী এবং কবি)-র কার্টিনের বাসায়। অইসব কবিতা পাঠ আসরের একটা নিয়ম ছিলো এবং তা হলো সবাইকে নিজের লেখা কবিতা কিংবা ছড়া পড়তে হবে। যদি কেউ স্বরচিত কিছু একটা না লিখে আনে, তবে হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের কবিতা আবৃত্তি করতে হতো । একবার রমা দেওয়ান (তখন পড়াশুনা করতো, এখন রাঙ্গামাটিতে চাকুরী করে) কিছুই লিখে আনেনি । অগত্যা নিষ্কৃতি পাবার জন্য অই আসরে বসেই লিখে ফেললো, ‘লাল মুজা পায়, টুনু হেঁটে যায়’ । বলা আবশ্যক যে, টুনু তখন লেখাপড়া করতো খুব শান্ত-শিষ্ট এবং ভদ্র ছেলে হিসেবে পরিচিত ছিলো।

যাহোক, এ কথা আজ আমাদের স্বীকার করতেই হবে যে, বিদেশে এসে আমাদের প্রতিভার বিকাশ ঘটেছে । আমরা নিজেদেরকে বিভিন্ন দিকে প্রস্ফুটিত করতে পেরেছি । দেশে থাকলে পরিবেশগত কারণে কিংবা সামাজিক অবকাঠামোর জন্য আমাদের এই প্রতিভা হয়তো চিরদিনই সুপ্ত থাকতো। কোনোদিন বিকশিত হতো না । কেউ কোনোওদিন বুঝতে পারতাম না যে আমাদের ভেতর এতো প্রতিভার বীজ লুকিয়ে ছিলো । তবে এর জন্য প্রয়োজন পরিবেশ এবং অপরচুনিটি’ । এই মুহূর্তে আফ্রিকান একটা প্রবাস মনে পড়লো এবং এই প্রবাদটা দিয়েই শেষ করছি এই পর্ব ।

‘Every morning in Africa, a gazelle wakes up.

It knows it must run faster than the fastest lion or it will be killed. Every morning a lion wakes up. It knows it must outrun the slowest gazelle or it will starve to death

It doesn’t matter whether you are a lion or a gazelle. When the sun comes up, you better start running’.

(চলবে)

> বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব[1] >

Endnotes:
  1. > বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব: https://priyoaustralia.com.au/tag/%E0%A6%AC%E0%A6%B9%E0%A7%87-%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%AF%E0%A6%BC-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%A8/

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2023/every-person-is-born-with-talent/


‘বাদল-দিনে’ – মাথানষ্ট পর্ব ১ – কে তুমি ব্যাকুল করো হায়

by Shahadat Manik | July 18, 2023 11:50 am

আজ এই শ্রাবণ হাওয়ায় – কোন ধরণের সংগীত জ্ঞান ছাড়াই ভারতীয় উপমহাদেশের লাইট ক্লাসিকাল, ক্লাসিকাল গানের ভক্ত আমি। সেই ছোট বেলা থেকেই। শুনতে ভালো লাগে – তাই শুনি।

বিখ্যাত ক্লাসিক্যাল সংগীত গুরু পণ্ডিত তুষার দত্তের কথা প্রথম শুনেছিলাম রবিন (গুডা) দা’র কাছে। তারপর নেট ঘেটে তাঁর অনেকগুলি ক্লাসিকাল গান শোনার সুযোগ হয়েছিল। অপূর্ব! এক কথায় অপূর্ব তাঁর কণ্ঠ, অপূর্ব তাঁর গায়কী!! তুষার দত্ত, হি ইজ “দা” ইন্ডিয়ান ক্লাসিক্যাল ভোকাল।

Jalsha Studio থেকে ‘বাদল-দিনে’ বর্ষা ভিত্তিক অ্যালবামটির প্রথম গানটি যেদিন প্রকাশিত হলো – সত্যি বলতে, গানটির নেশায় পড়ে গিয়েছিলামI মনে হয় শতবার শুনেছি। এই এক এমন গান – মনে হবে – “কেন আরো ঝরো না হায়”। পণ্ডিত তুষার দত্তের কণ্ঠে সূক্ষ সুক্ষ কাজগুলি বেশ শ্রুতিমধুর, বেশ উপভোগ্য হয়ে উঠে প্রতিবার। বার বার শুনতে মন চাইবে। গান প্রিয় শ্রোতাদের এই নিশ্চয়তা আমি দিতে পারি।

গানটিতে সুর দিয়েছেন প্রিয় বন্ধু রবিন গুডা’। তাঁর সুর সম্পর্কে বেশি কিছু বলার নেই। পরিচিতরা তাঁর সৃষ্টিশীলতা সম্পর্কে ভালো ভাবেই জানেন। তবে এই টুকু বলতে পারি – তিঁনি শুধু এই গানের কথাগুলিকে সঠিক মূল্যায়নই করেননি, অপূর্ব দক্ষতায় সাথে তাঁর সুরের জাদুর ছোঁয়ায় ছুঁইয়েও দিয়েছেন। অদ্ভুত এক নেশা দেয়া আছে গানের পরতে পরতে।

রবিন তাঁর এই কাজের মাধ্যমে বেঁচে থাকবেন – এই সুর, এই সঙ্গীত আয়োজন তাকে বাঁচিয়ে রাখবে সঙ্গীত দুনিয়াতে।

গানটির গীতিকার তুষার রায় I আমাদের তুষার রায়। আমাদের কবি তুষার রায়। একজন কবি যখন গান লিখেন – তখন – সেই গান তার ভিন্ন মাত্রা পেয়ে যায়। তেমনই হয়েছে “আজ এই শ্রাবণ হাওয়ায়” গানটিতে। দূরে মল্লারে কে যেন গায় – কে তুমি ব্যাকুল করো হায় – আসবে বলে রাখ ভরসায়! কবি তুষার রায় এর কাছ থেকে আরো আরো গান আসবে, আরো আরো গানের “ভরসায়” থাকলাম।

গানের লিংক: https://youtu.be/QK5A7XZi7xc[1]
রেটিং: ৯/১০

Endnotes:
  1. https://youtu.be/QK5A7XZi7xc: https://youtu.be/QK5A7XZi7xc

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/music-review/2023/%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%a6%e0%a6%b2-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a7%87-%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a5%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a6%b7%e0%a7%8d%e0%a6%9f-%e0%a6%aa%e0%a6%b0%e0%a7%8d/


তোমার কথা

by Shahadat Manik | July 5, 2023 9:41 am

তোমার কথা:-

তোমার কথা মনে হলেই
আপনা আপনিই হেসে উঠে
ডাক্তার বাড়ির রক্তিম, রক্ত জবা গুলি!

শরীর দুলিয়ে হাসতে থাকে
দুধে ভাতে খাবার পাকা আম
আম গাছটা – পতপত করে
ডালে বসা দোয়েল, কোয়েল
নড়ে উঠে, পাখা মেলে প্রশন্নপুরের
নীল আকাশে।

চিলেকোঠার ছাদে বসে পেঁচাটা
গভীর রাতে ডানা ঝাফটায়
রহস্যময় চোঁখ জোড়া খুলে
তাকিয়ে থাকে জোঁছনা ভেজা
নিস্তব্ধ ভূতুড়ে খোলা ছাদের দিকে;

একটু দূরে
পুকুর পাড়ের তালগাছটা
বাঁশঝাড়টা, ডুমুর গাছটা
আনিস ভাইয়ের কবরের উপর
নুয়ে পড়া গাছগুলি
স্থির হয়ে থাকে বেশ কিছু সময়;

দখিনা বাতাসে কামিনী ফুলের সুবাস
জোনাকীরা আলো জ্বালিয়ে
পুকুর পাড়ের বাঁশঝাড় সাজিয়ে রাখে
হাজী সাহেবের দক্ষিণের তালগাছটা
তাল ফেলতে সময় নেয় পুকুর জলে!

দ্বিধান্বিত হয়, ডাকাতীয়ার ক্ষয়ে যাওয়া চর
বিরহী উদাস ঝাঁকে বসে থাকা সাদা বকগুলি;
পারাপারের নৌকা বেঁধে রেখে ঘাটে
পাড়ে বসে থাকে খোনার মাঝি;
কোন কোলাহল নেই, কোন ব্যাস্ততা নেই
অলস বেদে পাড়া – কন্যা জায়া জননী
নৌকা গুলি পড়ে আছে নিস্তব্দতায়;

তোমার কথা মনে হতেই
আপনা আপনিই নড়েচড়ে উঠে
একলা বাড়িটা , স্থবির ডাকাতীয়ার জল!
বাউলিয়ানায় মাতাল হয়, অযত্নের
একলা একা ধূলিমাখা একতারাটা;

ধূলিমাখা প্রশন্নপুরের চাতক পথ
কার যেন পদচিহ্ন এঁকে রাখে বুকে,
অপেক্ষায় থাকে এক চির পরিচিত
সাত সমুদ্র তের নদী পেরিয়ে
নির্বাসিত প্রেমিক বাউল হৃদয়ের;

বাউল, তুমি কি আর আসবে না?
আসবে না!

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/literature/poems/2023/%e0%a6%a4%e0%a7%8b%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%95%e0%a6%a5%e0%a6%be/


বহে যায় দিন – কেবল বেদনা অনন্ত হয়, আমি বেদনায় বেঁচে থাকি

by Afzal Hossain | June 27, 2023 4:24 pm

> বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব[1] >

।। পাঁচ ৷৷ কেবল বেদনা অনন্ত হয়, আমি বেদনায় বেঁচে থাকি

জন্মগত সূত্রে প্রায় প্রত্যেকটি বাংলাদেশী কোনো না কোনো দিক দিয়ে রাজনীতির সাথে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত। রাজনীতি যেনো বাংলাদেশীদের জীবনের একটা অঙ্গ । আর তাই বেশীর ভাগ বাংলাদেশীই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে জীবনের একটা সুন্দর সোনালী সময় পার করে দেয় রাজনীতির পেছনে । কেউ কিছু পায়, তবে অনেকে কিছুই পায় না । তবুও সবাই ধূমায়িত চায়ের টেবিলে, মাঠে-ময়দানে, অফিসে, স্কুল-কলেজ-ইউনিভার্সিটিতে, হাটে-ঘাটে-বাজারে, এমন কী চলতি পথে যানবাহনেও রাজনীতি নিয়ে তুখোড় আলাপ-আলোচনায় মেতে ওঠে। আসলে রাজনীতি প্রায় সব বাংলাদেশীর রক্তের হিমোগ্লোবিনের সাথে মিশে আছে।

কথায় আছে, দু’জন বাংলাদেশী একত্র হলে তিন তিনটা রাজনৈতিক দল গড়ে তোলে । মতের এই অমিলের জন্যই আজ বাংলাদেশে একশ’-য়ের ওপর রাজনৈতিক দল । তবে বেশীর ভাগ রাজনৈতিক দলের সদস্য সংখ্যা খুবই নগন্য । এর প্রধান কারণ হচ্ছে মতের অমিলের দরুণ কিংবা কিছু না পাবার অনুশোচনায় গুটিকয়েক ‘লাইক মাইন্ডেড’ রাজনীতিবিদ কিংবা আঁতেল বড় বড় রাজনৈতিক দল থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গড়ে তোলেন এইসব ছোট ছোট রাজনৈতিক দল ।

তাছাড়া টিকে থাকার জন্যও বাংলাদেশে রাজনীতি হলো জীবনের একটা অংশ । বেঁচে থাকার জন্য আমাদের যেমন ভাত-কাপড় আর বাসস্থানের প্রয়োজন, ঠিক তেমনই এগুলো পাবার জন্য রাজনীতির প্রয়োজন । বাংলাদেশে রাজনীতি বাদ দিয়ে জীবন চলে না, চলতে পারে না । রাজনীতিবিহীন জীবন চলে বিদেশে, বিশেষ করে পশ্চিমা উন্নত দেশগুলোতে । কেনোনা অই সব দেশের সাধারণ জনগনের জন্য রয়েছে সরকার। আমাদের দেশে সরকার আছে নিজেদের জন্য, জনগণের জন্য নয় ।

আমরা যারা প্রথম প্রজন্ম স্থায়ীভাবে বসবাস করার জন্য বিদেশে আসি, দেশ ছেড়ে আসার সময় অনেকে নিজেদের মনের অজান্তেই ‘লাগেজ’-এর সাথে যেই জিনিসটা নিয়ে আসি, তা হলো রাজনৈতিক সচেতন মন । ফলে বিদেশের মাটিতে আমরা গড়ে তুলি বিভিন্ন রাজনৈতিক দল । সঙ্গে করে নিয়ে আসা চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য আছে বলেই আমরা রোমে গিয়ে সহজে রোমান হতে পারি না । আসলে আমরা সহজেই নিজেদের অস্তিত্ব এবং স্বাতন্ত্রকে বিসর্জন দিতে পারি না । প্রথম প্রজন্ম হিসেবে প্রবাসের শিল্প-সংস্কৃতি কিংবা রাজনীতির সঙ্গে এসিমিলেট করা আমাদের স্বভাব নয় । কিংবা বুকের ভেতর দারুণ ইচ্ছে জমা থাকলেও সেটা সম্ভব হয়ে ওঠে না । বাংলাদেশী হিসেবে নিঃসন্দেহে আমাদের আইডেন্টিটির সঙ্গে এক ধরনের অহংকার জড়িয়ে আছে। আর সেই অহংকারকে বিসর্জন দিয়ে অনেকের মতো পশ্চিমা সোসাইটির সাথে সময়ের স্রোতে গা ভাসিয়ে দিতে পারি না, কিছুতেই না ।
বাংলাদেশের আলো-বাতাস, গাছের ডাল-পাতা, সবুজ ঘাসের বুক, নদীর স্রোত আর পাখ-পাখালীর রঙিন পালকের ভাঁজে লুকিয়ে থাকা সোনালী শৈশব এবং স্মৃতিমাখা দিনগুলো পেছনে ফেলে যখন আমরা বিদেশের মাটিতে পা রাখি, তখন প্রথম খুঁজি দেশী আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব কিংবা সুপরিচিত বা অল্প পরিচিত কাউকে । ভাগ্য প্রসন্ন হলে কেউ কেউ পেয়ে যাই, অন্যথায় অপরিচিতদের সঙ্গে পরিচিত হই । পরিচয়ের অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ভাই-ভাবী অথবা আপা-ভাইসাব বানিয়ে ফেলি । কখনও-সখনও বয়স্কদের পেলে আঙ্কেল-আন্টি বলে সম্ভোধন করি । তারপর মতের মিল হলে ক্রমশ গড়ে ওঠে সখ্যতা । নইলে শুরু হয় বৈরী সম্পর্ক, যেমন লেখক আর প্রকাশকের মধ্যে গড়ে ওঠা জটিল সম্পর্ক

পৃথিবীর সকল বড় বড় শহরে যেখানে প্রচুর বাংলাদেশী বসবাস করেন, সেখানে রয়েছে একাধিক দল বা গ্রুপ । এমন দৃশ্য বিরল নয়। গত ২৮শে মার্চ ২০০৬ সালে ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক জনকন্ঠ পত্রিকায় ন্যু ইয়র্ক থেকে মিনা ফারাহ ‘প্রবাসে মাইনরিটির আইডি ক্রাইসিস’ শিরোনামে একটা লেখায় চমৎকারভাবে উপস্থাপিত করেছেন সেখানে বাংলাদেশীরা আগাছার মতো অসংখ্য প্রবাসী সংগঠন তৈরী করে কিভাবে নিজেদের আইডেনটিটি ক্রাইসিসে ভুগছেন । এইসব বাংলাদেশীরা নিজেদের পরিচয় বা প্রচারের জন্য অথবা একধরনের আত্মতৃপ্তির জন্য সমিতি খোলেন, বিভিন্ন সংগঠন গড়ে তোলেন । কোনো কোনো সংগঠন আবার রাজনৈতিক গন্ডির বাইরে, যেমন ভাই-বোন সংগঠন, রুমমেট সংগঠন, পাড়া সংগঠন, থানা সংগঠন, জেলা সংগঠন ইত্যাদি । সুযোগ পেলেই এইসব সো-কল্ড নেতারা “ই” মিডিয়াতে নিজেদের ছবি ফলাও করে ছাপান, সভা-সমিতির মঞ্চে বক্তৃতায় কথার তুমুল ঝড় তোলেন । দেশপ্রেমে গদগদ হন । তারপর বক্তৃতার শেষে আত্মতৃপ্তির ঢেকুর তুলতে তুলতে বাড়ী ফেরেন । মিনা ফারাহ উল্লেখ করেছেন এখন আমেরিকায় বসবাসকারী বাংলাদেশীদের মধ্যে প্রচন্ড বিভক্তি, দলাদলি – এমন কি কোর্ট কাচারীও। এই দৃশ্য শুধু যে আমেরিকাতেই দেখা যায়, তা নয়।

সিডনীর কথাই ধরা যাক । জানি, ওখানে অনেক বাংলাদেশী আছেন । থাকবেনই তো । থাকাটা স্বাভাবিক । কেনো না সিডনী হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় শহর। বাংলাদেশীদের মধ্যে কতো যে গ্রুপ, কতো যে বিভাজন – তার কোনো ইয়ত্তা নেই ।

আমি মোটামুটি নিশ্চিত যে সিডনীবাসী কাউকে জিজ্ঞেস করলে কেউ সরাসরি বলতে পারবেন না তাঁদের শহরে বাংলাদেশীদের মধ্যে কতোগুলো রাজনৈতিক বা সাংস্কৃতিক দল আছে । দল বেশী থাকা মানে কোন্দল । আর এই কোন্দল থেকে জন্ম নেয় কাদা ছোড়াছুড়ি । সুযোগ পেলেই একে অপরের বিরুদ্ধে এক হাত নেন । সময়ে অসময়ে আদাজল খেয়ে বর্ষণ করেন “অনল বাণ” । এইসব করার জন্য ইদানীং বেশ কিছু ইলেক্ট্রোনিক পত্র-পত্রিকা রয়েছে । এই ইন্টারনেট মিডিয়াগুলোতে পরবাসী বাংলাদেশীরা তাদের সুচিন্তিত মতামত, বিভিন্ন কর্মকান্ডের বিশদ বিবরণ এবং নানা সমস্যার কথাই শুধু তুলে ধরেন না, বরং সঙ্গে সঙ্গে একজন আরেক জনের বিরুদ্ধে কিংবা একদল আরেক দলের বিরুদ্ধে প্রচার করেন নানান ধরনের মুখরোচক কাহিনী । পরবর্তীতে উল্টোপাশের পত্র-পত্রিকায় দেখা যায় পাল্টা বিবৃতি কিংবা জম-জমাট ফিচার বা আর্টিকেল । নিঃসন্দেহে এই নিয়ে দু’পক্ষই বেশ কিছুদিন ব্যস্ত থাকেন পরচর্চায় । যার ফলে ব্যক্তিগত মতানৈক্য কিংবা রাজনৈতিক চিন্তা-ধারার অমিল শেষ পর্যন্ত পারিবারিক পর্যায়ে পৌঁছে ।
একইভাবে উদাহরণ হিসেবে ক্যানবেরার কথাই ধরা যাক। সেই ১৯৮৪ সালে ক্যানবেরাতে এসেই পেলাম হাতে গোণা কয়েকটা পরিবার নিয়ে একটাই সংগঠন – বাংলাদেশ-অষ্ট্ৰেলিয়া এসোসিয়েশন যা এখনও টিকে আছে । এই এসোসিয়েশনের ছাতার নীচে খুশী মুখ নিয়ে সবাই এসে মিলিত হতাম । যদিও কেউ কারোর আত্মীয় ছিলাম না, কিন্তু সবার মধ্যে ছিলো একধরনের নিবীড় সম্পর্ক । বিশেষ করে আমরা যারা তখন ছাত্র ছিলাম, সেই সময়ে কয়েকজন ‘বড় ভাই-ভাবী’ আমাদের জন্য কী না করেছেন । খোঁজ খবর নেওয়া থেকে শুরু করে মাঝে মধ্যে বাসায় নিয়ে সারাদিন হৈ চৈ করা আর পেট পুরে খাওয়া-দাওয়া- সবই ছিলো । ১৯৮৬ সালের শুরুতে শুরুতে এই শান্ত-নিবীড় সম্পর্কের মধ্যে নেমে এসেছিলো শ্রাবণের ঘন কালো মেঘ। এসোসিয়েশনের ইলেকশনের আগে সবাই চাইছিলো হাসমত (মীর হাসমত আলী, এখন রিটায়ার্ড ক্যানবেরাতেই সপরিবারে বসবাস করছেন) ভাইকে প্রেসিডেন্ট বানাতে। তাতে কয়েকজন সো-কল্ড ‘আঁতেল’ নাখোশ ছিলেন । কেনো না আমাদের সহজাত নিয়মে আমরা সবাই চাই নেতা হতে, কেই কর্মী হতে চাই না । Groucho Marx খুবই সত্যি বলেছেন, “I don’t want to belong to any club that will accept me as a member’। এইসব আঁতেলরা ছিলেন পুঁথিগত ‘বিদ্যা’-য় অগ্রগামী । সুতরাং প্রেসিডেন্ট হতে হলে তাদের মধ্য থেকেই হতে হবে । এই ছিলো তাদের ধারণা, মন-মানসিকতা । অথচ বাকী সবাই নির্দ্বিধায় চেয়েছেন হাসমত ভাইকে । এই নিয়ে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতার অনেক চেষ্টা করেও শেষতক কোনো লাভ হয়নি। ফলে যা হবার, তাই হয়েছে । এসোসিয়েশন ভেঙ্গে গড়ে তোলা হলো ‘বাংলাদেশ ফোরাম’ । অল্প কয়েক দিনের মধ্যেই মেঘলা বিহীন স্বচ্ছ দিনের আলোর মতো স্পষ্ট হয়ে গেলো দু’টি ভিন্ন গ্রুপ । এই বিভাজনের কোনোই প্রয়োজন ছিলো না। তবুও হয়েছে । শুধু জেদের বশে । কিন্তু পরিতাপের বিষয়, বছর দুই চলার পর একদিন ‘বাংলাদেশ ফোরাম’ মুখ থুবরে পড়ে যায় । পরবর্তীতে আর উঠে দাঁড়াতে পারেনি । কারণ ‘বাংলাদেশ ফোরাম’-এর জন্মের সময় যারা ছিলেন কান্ডারী, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তাদের উৎসাহ এবং উদ্দীপনা ফুটো করা বেলুনের মতোই থিতিয়ে আসে । এছাড়া তাদের মধ্যে কয়েকজন চাকুরীর সুবাদে চলে গিয়েছিলেন অন্যত্র। বাদবাকী যারা ছিলেন, তাদের অনেকেই ছিলেন ছাত্র। সাতকূল ভেবে তারা পড়াশুনায় মনোনিবেশ করলে অন্যান্যদের উৎসাহে আরও বেশী ভাটা পড়ে ।

‘মানুষ মাত্রই রাজনৈতিক প্রাণী” – রাষ্ট্রবিজ্ঞানের এই সত্য অনুযায়ী সমাজের সকল স্তরের নাগরিকদের, বিশেষ করে শিক্ষিত সমাজকে রাজনৈতিক ভাবে সমাজ সচেতন হতে হয় । এই অমোঘ সত্যকে একটু ঘুরিয়ে অনায়াসে বলা যায় ‘বাংলাদেশী মানুষ মাত্রই রাজনৈতিক সচেতন’ । এই পর্বের শুরুতেই উল্লেখ করেছি, বাংলাদেশী প্রায় প্রতিটি মানুষের রক্তের হিমোগ্লোবিনের সঙ্গে মিলেমিশে আছে প্রগাঢ় রাজনীতি । তবে বাংলাদেশী যারা দেশে থাকাকালীন অবস্থায় কোনোদিনই কোনো রাজনৈতিক দলের সাথে সরাসরি যুক্ত ছিলেন না, তারা পরবাসে এসেই কোনো না কোনো রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃত্ত হয়ে যান। তার প্রধান কারণ হচ্ছে একধরনের ‘দেশপ্রেম’ ।

পরবাসে বাংলাদেশীরা বাঙালীর বহমান ঐতিহ্য, কৃষ্টি, সাহিত্য এবং সংস্কৃতিকে ধরে রাখার জন্য বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করি, পালন করি কিছু কিছু মহান দিবস – যেমন বাংলা বর্ষবরণ বা বৈশাখী মেলা, শহীদ দিবস বা ভাষা দিবস কিংবা একুশে ফেব্রুয়ারী, বই মেলা, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, ঈদ পুর্নমিলনী বা ঈদ মেলা । এমন কী বাংলাদেশ থেকে বিখ্যাত কিংবা স্বল্প পরিচিত শিল্পী এনে সঙ্গীতানুষ্ঠান করি, নাটকও মঞ্চায়ন করি ।
তাতে আমরা স্বদেশের সাথে নিজেদের একধরনের সম্পৃত্ততার কথা জানিয়ে দিই । নিজেদের মনের ভেতর স্বান্তনা খুঁজে বেড়াই । জানি, আমাদের মনের মধ্যে দেশ ছাড়ার অনেক বেদনা জমা আছে, লুকিয়ে আছে হাহাকার । ভাবতে অবাক লাগে, সত্যি আমরা বছরের পর বছর এই পরবাসে বুকের ভেতর নীল বেদনা নিয়ে কী রকম বেঁচে আছি । তাই তো কবি হাসান হাফিজুর রহমানের ‘আমার ভেতরে বাঘ’ কাব্যগ্রন্থের একটা কবিতার লাইন মনে পড়লো, ‘কেবল বেদনা অনন্ত হয়, আমি বেদনায় বেঁচে থাকি ।’

(চলবে)

> বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব[1] >

Endnotes:
  1. > বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব: https://priyoaustralia.com.au/tag/%E0%A6%AC%E0%A6%B9%E0%A7%87-%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%AF%E0%A6%BC-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%A8/

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2023/%e0%a6%ac%e0%a6%b9%e0%a7%87-%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%af%e0%a6%bc-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8-%e0%a6%95%e0%a7%87%e0%a6%ac%e0%a6%b2-%e0%a6%ac%e0%a7%87%e0%a6%a6%e0%a6%a8%e0%a6%be-%e0%a6%85/


খেয়াল রেখো

by Shahadat Manik | June 25, 2023 12:01 pm

খেয়াল রেখো:-

আমিও একদিন থেকে যাবো পৃথিবীতে
সে দিন, সারাদিন তুমি থাকবে
আমার সাথে।

হাসতে হাসতে পেট ব্যাথা হয়ে যাবে
আবার অনেক আবেগে কেঁদে ফেলবো
কখনো কখনো।

কখনো রবীন্দ্রনাথ কখনো জীবনানন্দ
কবিতার সাথে ভালোবাসার পঞ্চ ভাষা
মিলে মিশে।

জানালা তোমার আমার পাশে দাঁড়াবে
ফুলে ফুল সেজে যাবে সাত আসমানে
ঈশ্বর প্রেমে।

যুগল, থেকে যাবো এই পৃথিবীতে
ঈশ্বর পাঠান দূত – বনে যায় ধর্ম
ভালোবাসা হবো।

এভাবেই মুহূর্ত, মুহূর্তে মুহূর্তে ঝিলিক
মনের ঝিলিক চোঁখে, মুখে, ঠোঁটে
বাউল বাতাসী।

মান্না, কলিম শরাফী কিংবা বেগম আখতার
গুন্ গুনাবো সারা দিন অথবা আত্মহারা
আমি গাইবো।

অঝোর ধারে, বাইরে বৃষ্টি হবে
আমি তোমাকে গল্প শোনাবো
প্রেমের গল্প।

[1]
Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/06/green-earth.jpg

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/literature/poems/2023/%e0%a6%96%e0%a7%87%e0%a6%af%e0%a6%bc%e0%a6%be%e0%a6%b2-%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%96%e0%a7%8b/


Canberra Eid-ul-Adha 1444H on Wednesday, 28th June 2023

by Muhith Masih (বাবু) | June 23, 2023 8:56 am

[1]

It is confirmed the first day of Dhul Hijjah is Monday, 19 June 2023. Therefore the Day of Arafah will fall on Tuesday, 27 June 2023 and Eid-ul-Adha will be on following day, WEDNESDAY, 28 June 2023, Inshallah.
– Imams Council of ACT.

Note: Salat-ul-Eid at Canberra Mosque will be held at 8am SHARP, Inshallah.
CIC 2 Prayer Sessions, 7:30am and 9:00am repectively.

[2]
Endnotes:
  1. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/06/image-6.png
  2. [Image]: https://priyoaustralia.com.au/wp-content/uploads/2023/06/image-5.png

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2023/canberra-eid-ul-adha-1444h-on-wednesday-28th-june-2023/


বহে যায় দিন – একবার যেতে দে না আমায় ছোট্ট সোনার গাঁয়

by Afzal Hossain | June 21, 2023 10:26 am

> বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব[1] >

।। চার ।। একবার যেতে দে না আমায় ছোট্ট সোনার গাঁয়

১৯৯১ সালের জুলাই মাসে সবকিছু উপেক্ষা করে এই ক্যানবেরার পাট চুকিয়ে ফিরে গিয়েছিলাম দেশে । উদ্দেশ্য ছিলো ঢাকায় ফিরে গিয়ে আমার স্ত্রী ও আমি দু’জনে দুটো চাকুরী পাবো এবং সেখানেই স্থায়ীভাবে ছেলে-মেয়ে নিয়ে বসবাস করবো ।

ঢাকায় ফিরে আমার স্ত্রী এবং আমি চাকুরী নামক সোনার হরিণ খুঁজতে থাকি সম্ভাব্য সকল জায়গায়। প্রায় সাত বছর এখানে এই ক্যানবেরাতে থাকায় অনেক সম্পর্ক ফিকে হয়ে গেছে, যেমন শীতের সকালে কুয়াশার চাদরে ঢাকা পরে ফিকে হয়ে যায় ভোরের নরোম রোদ । তাছাড়া এই সময়ে চেনা মুখ অচেনা হয়ে গেছে । এমন কি আত্মীয়-স্বজন থেকে শুরু করে বন্ধু-বান্ধব সবার সঙ্গে যোগাযোগের সুতোও মলিন হয়ে গেছে । যাকে বলে, “আউট অব সাইট, আউট অব মাইন্ড ।’

তবুও আমার স্ত্রী এবং আমি মাঝে মাঝে আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই পুরোনো ডিপার্টমেন্টে যেতাম । এখানে বলা আবশ্যক যে, আমার স্ত্রী উইনরক ইন্টারন্যাশানেল-এর স্কলারশীপ নিয়ে অষ্ট্ৰেলিয়ান ন্যাশন্যাল ইউনিভার্সিটিতে পড়াশুনা করার জন্য ক্যানবেরায় আসার আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জিওগ্রাফি ডিপার্টমেন্টের শিক্ষক ছিলেন । আমরা স্যারদের রুমে বসে গল্প করতাম, আলোচনা করতাম নানান বিষয়ের উপর। খোঁজ-খবর নিতাম ডিপার্টমেন্টের শিক্ষক/শিক্ষিকার ঘাটতি নিয়ে। তাছাড়া অন্যান্য অনেক জায়গায় খোঁজ-খবর নিয়েছিলাম । কোথাও কোথাও আবার বায়োডাটা দিয়েছিলাম ।

একদিন আমি ডিপার্টমেন্টে এক সিনিয়র স্যারের রুমে বসে গল্প করছিলাম। রুমে তখন অন্য কেউ ছিলো না। এ-কথা সে-কথা বলার এক ফাঁকে স্যার জানতে চাইলেন আমার প্ল্যান কি ? আমি সরাসরি স্যারকে বললাম, “এই মুহূর্তে একটা চাকুরী খুব দরকার ।”

স্যার একটু নড়েচড়ে বসলেন । তারপর বললেন, ‘ডিপার্টমেন্টে কোনো পার্মানেন্ট পজিশন নেই । তবে অস্থায়ী একটা পজিশন ক্রিয়েট করে সেই পজিশনটা তোমাকে দিতে পারি । তবে একটা কন্ডিশন । তা হলো তোমাকে টিচার পলিটিক্সে ইভলভ হতে হবে।’

আমি কিছুটা চমকে, থমকে গিয়েছিলাম । সেই মুহূর্তে আমার মনে হয়েছিলো একপাল বনা ঘোড়া প্রচন্ড শব্দ তুলে দৌড়ে চলে এলো মাথার মধ্যিখানে । আর সেই ক্ষুরের শব্দে মাথাটা আমার ভীষণ ঝিমঝিম করছিলো । কপালের দু’পাশের শিরা দু’টো বাউন্সিং বলের মতো লাফাচ্ছিলো।

এক মিনিটের মতো সময় নিয়ে আমি নিজেকে যতোটুকু সম্ভব স্বাভাবিক করে বললাম,

“স্যার, আপনি তো ভালো করেই জানেন আমি ছাত্র জীবনে একটু আধটু রাজনীতির সঙ্গে
জড়িত ছিলাম । এক সময় শহীদুল্লাহ হলে ইলেকশনও করেছি এবং ইলেকটেডও হয়েছি । তবে রাজনীতির সাথে কোনোদিনও নিজেকে গভীরভাবে জড়াইনি কিংবা রাজনীতিকে আপন করে নিতে পারিনি । যেদিন রাজনীতির কুৎসিত চেহারা আমার সামনে বেরিয়ে এলো, সেদিন থেকেই আমি নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছি । তারপর আর কোনোদিনও রাজনীতি আমাকে গভীরভাবে কাছে টানতে পারেনি ।

কিছুক্ষণ স্যার কি যেনো ভাবলেন মুখটা গম্ভীর করে । তারপর বললেন, “তবে টিকে থাকার জন্য এদেশে রাজনীতি হলো জীবনের একটা অংশ । বেঁচে থাকার জন্য আমাদের যেমন ভাত-কাপড় আর বাসস্থানের প্রয়োজন, ঠিক তেমনই এগুলো পাবার জন্য রাজনীতির প্রয়োজন । এখানে রাজনীতি বাদ দিয়ে জীবন চলে না, চলতে পারে না । রাজনীতিবিহীন জীবন বিদেশে চলে । কেনোনা অই সব দেশের সাধারণ জনগনের জন্য রয়েছে সরকার। আমাদের দেশে সরকার আছে নিজেদের জন্য, জনগণের জন্য নয় । ”

“তবুও স্যার ছাত্র হিসেবে রাজনীতি করা যায়, কিন্তু শিক্ষক হয়ে ছাত্রদের নিয়ে রাজনীতি করা বোধহয় উচিত নয় । সরি, আমি পারবো না।” বলেই জবাবের অপেক্ষা না করে কোনোরকম সালাম জানিয়ে প্রায় এক দৌড়ে বেড়িয়ে আসি রুম থেকে। আমার সারা শরীর তখনও শিরশির করে কাঁপছিলো । একবার ফিরেও তাকাইনি ।

সেই সময় অনেকে আমাদের আশার বাণী শুনিয়েছেন, শুকনো ঠোটের ফাঁকে চুক চুক শব্দ করে গভীর দুঃখ প্রকাশ করেছেন, আবার কেউ মুখের ওপর সরাসরি না-ই করেছেন । ফ্রাশটেশন নামক ঘুণপোকা যখন আমাদের দু’জনকেই নিঃশব্দে কুরে কুরে খাচ্ছিলো, তখনই আমরা ভেবে-চিন্তে ডিসিশন নিই আবার সপরিবারে ফিরে আসবো ক্যানবেরায় । এক সপ্তাহের মধ্যে ইমিগ্রেশনের ফর্ম এনে ফিল-আপ করে জমা দেবার পর মাস দেড়েকের ভেতর কোনো ঝুট ঝামেলা ছাড়াই আমাদের ইমিগ্রেশন হয়ে যায় ।

সেই সময় আমার এক কাজিন গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের একজন জাদরেল সিনিয়র মন্ত্রী ছিলেন এবং তিনি বর্তমানেও মন্ত্রী আছেন । প্রধান মন্ত্রীর ডান হাত বলা যায় অনায়াসে । সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে গেলে পর আমি একদিন আমার বড় ভাইকে, যিনি সেই সময় এক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ছিলেন এবং এখনও আছেন, বললাম যে আমরা ইমিগ্রেশন নিয়ে আবার ফিরে যাচ্ছি অস্ট্রেলিয়ায় । উনি শোনার পর খানিকটা সময় কিছু একটা ভাবলেন । তারপর গলার স্বরটাকে ভারী করে বললেন, “তোমার চাকুরীর প্রয়োজন, আমাকে বলোনি কেনো ?

সেই মুহূর্তে আমি যেনো পোকায় খাওয়া ফলের মতো টুপ করে গাছ থেকে পড়লাম । ব্যথা পেয়েছিলাম বড় ভাইয়ের কথায় । আমি জানতাম, উনি নিজে অথবা কাজিনকে দিয়ে যেকোনো জায়গায় আমাদের দু’জনকেই দু’টো চাকুরী দিতে পারেন । আমি কিছু না বলে মাথা নীচু করে কন্ঠস্বর স্বাভাবিক করেই বললাম, ‘আমাদের চাকুরীর দরকার নেই । কেনো না, যেখানে সার্টিফিকেট দেখিয়ে চাকুরী পাওয়া যায় না, পেতে হলে ধরাধরি করতে হয়, সেখানে চাকুরী করার ইচ্ছে নেই।’

বড় ভাই গোল গোল চোখ তুলে কয়েক মিনিট অবাক তাকিয়ে দেখলেন আমাকে, যেনো এই প্রথম আমাদের পরিচয় । এক সময় আস্তে করে শুধু বললেন, ‘ঠিক আছে, তুমি যা ভালো বোঝো।”
আমরা জানি অনিশ্চিয়তার জীবন থেকে মুক্তি পেতে যাচ্ছি । তবুও আমাদের হৃদয়ের গভীরে শেকড়ের টান যে আলগা হয়ে যাচ্ছে, আমরা তা স্পষ্টই টের পাচ্ছিলাম । সেদিন আমি জীবনানন্দ দাশের ভাষায় কাউকেই বলতে পারেনি, ‘তোমরা যেখানে সাধ চলে যাও, আমি এই বাংলার পরে রয়ে যাবো।’

এই অধ্যায়ের নামকরন করেছি ‘একবার যেতে দে না আমায় ছোট্ট সোনার গাঁয় । সেই সুযোগ পেয়েছিলাম । কিন্তু পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি আর নিজের বিবেকের কাছে পরাজিত না হয়ে শেষতক ধরে রাখতে পারিনি । অথবা খানিকটা ঘুরিয়ে বলা যায়, আমাকে ধরে রাখতে দেয়নি । তাইতো আবার ফিরে এসেছি এই ক্যানবেরায় । 

(চলবে)বহে যায় দিন

আফজল হোসেন

(পূর্ব প্রকাশিতের পর)

> বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব[1] >

Endnotes:
  1. > বহে-যায়-দিন সকল প্রকাশিত পর্ব: https://priyoaustralia.com.au/tag/%E0%A6%AC%E0%A6%B9%E0%A7%87-%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%AF%E0%A6%BC-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%A8/

Source URL: https://priyoaustralia.com.au/articles/2023/ekbar-jete-de-na/